বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৭ ফাল্গুন ১৪২৬

Select your Top Menu from wp menus

‘১৪ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রীয়ভাবে সুন্দরবন দিবস পালনের দাবি’

স্টাফ রিপোর্টার: বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে কেবল মানুষকে নয়, সুন্দরবনকে ভালোবাসুন-এই প্রতিপাদ্য নিয়ে শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) খুলনায় সুন্দরবন দিবস পালিত হয়। বন অধিদপ্তর, সুন্দরবন একাডেমি, রূপান্তর, খুলনা প্রেসক্লাবসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান যৌথভাবে দিবসটি পালন করে।

দিবসটি পালন উপলক্ষে সকালে খুলনা উমেশচন্দ্র পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক।

প্রধান অতিথি মেয়র বলেন, সুন্দরবন দেশের ঐতিহ্য ও জাতীয় সম্পদ। এই বন নিয়ে আমরা গর্ব করি। সুন্দরবন বাংলাদেশকে মায়ের মতো রক্ষা করে। কিন্তু কিছু লোক এই বনকে ধ্বংস করার চেষ্টা করছে। সুন্দরবনের টিকে থাকার ওপর দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের বেঁচে থাকা, অর্থনৈতিক অগ্রগতি, সমৃদ্ধি বহুলাংশে নির্ভরশীল। তাই সুন্দরবনকে রক্ষার জন্য এই অঞ্চলের মানুষকেই আগে এগিয়ে আসতে হবে। যারা সুন্দরবনকে ধ্বংস করতে চায় তাদের আইনের আওতায় আনার পরামর্শ দেন সিটি মেয়র।

খুলনা সার্কেলের বন সংরক্ষক মোঃ মঈনুদ্দীন খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনার অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) সুবাস চন্দ্র সাহা এবং অতিরিক্ত ডিআইজি মোঃ হাবিবুর রহমান ও খুলনা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজা। সুন্দরবন বিষয়ে তথ্য উপস্থাপন করেন বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ বশিরুল-আল-মামুন। স্বাগত জানান সুন্দরবন একাডেমির নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক আনোয়ারুল কাদির। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন খুলনা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ফারুক আহমেদ। ধন্যবাদ জানান সুন্দরবন একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা উপদেষ্টা স্বপন কুমার গুহ।

বক্তারা সুন্দরবনের কোন ধরণের পরিবেশ, জীব বৈচিত্র্যের ক্ষতি হবে এমন সব ধরণের কর্মকা- বন্ধে আহ্বান জানিয়ে ১৪ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রীয়ভাবে সুন্দরবন দিবস যাতে পালিত হয় সে ব্যাপারে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দাবি জানান। বক্তারা সুন্দরবন রক্ষায় জনঅশংগ্রহণ আরো বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, শুধুমাত্র বন বিভাগের কিছু কর্মীদের দিয়ে সুন্দরবনকে রক্ষা করা সম্ভব নয়। সুন্দরবন সন্নিহিত এলাকার মানুষকে এ বিষয়ে সচেতন করে তুলতে হবে যে সুন্দরবনের যে কোন ক্ষতি তাদেরও ভবিষ্যতে মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন করবে।

এবারের সুন্দরবন দিবস উপলক্ষে গত বুধবার বিকেলে উমশেচন্দ্র পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে বিপুল সংখ্যক প্রতিযোগির অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় “যেমন দেখতে চাই সুন্দরবনকে” শীর্ষক চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। শিশু শ্রেণি থেকে দ্বিতীয় শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের গ্রুপে মোঃ সিয়াম শেখ (প্রথম), কাফিয়া মেহরিন অপ্সরা (দ্বিতীয়), রোদসী মাহজাবিন ঐশ্বর্য ও সূর্য রায় (তৃতীয়), তৃতীয় শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের গ্রুপে নুজাইমা বিনতে আজাদ তুলতুল (প্রথম), আরিয়া চৌধুরী (দ্বিতীয়), শিকদার নাহিয়ান ইসলাম ও মোঃ তাহসিন সাহিদ (তৃতীয়)-কে পুরষ্কৃত করা হয়।

এর আগে মেয়রের নেতৃত্বে সকালে নগরীর হাদিস পার্ক থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে উমেশচন্দ্র পাবলিক লাইব্রেরি এসে শেষ হয়। র‌্যালিতে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন। রূপান্তর থিয়েটারের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও সুন্দরবনের পটগান দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।

Related posts