শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

Select your Top Menu from wp menus

মধ্যযুগীয় কায়দায় শিশু নির্যাতন, গ্রেফতার ৩

স্টাফ রিপোর্টার: মোবাইল চুরির অভিযোগে জেলার ডুমুরিয়ায় গাছে বেঁধে কুদ্দুস নামের এক নাবালক শিশুকে মারপিটের ঘটনায় ৩জনকে গ্রেতার করেছে পুলিশ। শিশুর মা শাবানা বেগম বাদী হয়ে শনিবার (১৮ নভেম্বর) ডুমুরিয়া থানায় ৬জনকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করে। পুলিশ সকালে মামলার ৩ আসামীকে আটক করে কোর্ট হাজতে প্রেরণ করেছে। এদিকে ঘটনার সাথে জড়িত আরো ৩জন আসামীকে আড়াল করা হয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাতে ডুমুরিয়া উপজেলার উলা বাজারে বাহারুল ইসলামের একটি মোবাইল ফোনের দোকানে চুরির অভিযোগে শিশু কুদ্দুস কুদ্দুসকে (১৩) তার বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে মামলার আসামীরা গাছে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় বেদম মারপিট করে। এ ঘটনা পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হলে টনক নড়ে পুলিশের। এদিকে বিষয়টি ধামাচাপা দিতে কতিপয় কুচক্রীরা জোর তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছিল। একপর্যায়ে থানা পুলিশ শনিবার (১৮ নভেম্বর) সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত হন। নির্যাতিত শিশুর মা শাবানা বেগম বাদী হয়ে ৬জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ২/৩জনকে আসামী করে ডুমুরিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর ২৩। মামলায় বলা হয়েছে, উলা গ্রামের ভ্যান চালক আঃ মালেক সরদারের নাবালক ছেলে কুদ্দুস সরদার স্থানীয় উলা বাজারে কবিরের মোবাইলের দোকানের কর্মচারী।
ঘটনারদিন পাশের বাহারুলের মোবাইল ফোনের দোকানে চুরি হয়। ওই চুরির ঘটনায় শিশু কুদ্দুসকে সন্দেহভাবে মামলার আসামী বাহারুল সানা(৩৫)’র নির্দেশে স্থানীয় শাহাবাজ মোল্যার ছেলে রুহুল মোল্যা(৩৫) ও শফিকুল গাজী ছেলে সোহেল গাজী(২২) রাত ১১টার দিকে ঘুমান্ত কুদ্দুসকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে মামলার অন্য আসামী উলা গ্রামের ফটিক সরদারের ছেলে বাবর সরদার(৩৪), কাকমারী গ্রামের রাধাকান্ত মন্ডলের ছেলে নবমুসলিম কবির সরদার(২৮) ও মইখালী গ্রামের সুরত মোল্যার ছেলে সোহেল মোল্যা(২৩) মিলে মইখালী বাজারের পাশে একটি ফাকা জায়গায় গাছের সাথে শিশুকে বেঁধে বেদম মারপিট করে। এক পর্যায়ে পানিতে চুবিয়ে নির্যাতন করা হয়। অসুস্থ্য অবস্থায় শিশুটিকে শুক্রবার ভোরে তার বাড়ির সামনে নিয়ে যায়। এ সময়ে শিশুর পিতা মালেক সরদার (৪০) ও মা শাবানা বেগম (৩২) কে জানানো হয় তাদের ছেলে মোবাইল চুরি করেছে। শিশুকে রেখে যাওয়ার কিছুক্ষণ পর সে জ্ঞান হারিয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। পরিবারের সদস্যরা তাকে চিকিৎসার জন্য দ্রুত ডুমুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার মিলন কুমার দাস জানান, শিশুর গায়ে অসংখ্য ফোলা জখম রয়েছে। এদিকে ঘটনার সাথে জড়িত উলা গ্রামের মোসলেম সরদার(৪৫), সালাম সরদার(৩২) ও শাহিন সরদার(৩০) কে আড়াল করা হয়েছে বলে আহত শিশু কুদ্দুস জানায়। এ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। পুলিশ এজাহারভুক্ত আসামী রুহুল মোল্যা, কবির সরদার ও বাহারুল ইসলামকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করেছে। থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ হাবিল হোসেন বলেন, মামলার ৩ আসামীকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত চলছে, অভিযান অব্যাহত, ঘটনার সাথে জড়িত কাউকেও ছাড় দেয়া হবে না।

Related posts