সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯ | ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

Select your Top Menu from wp menus

ব্রিটেনের অর্থনীতিতে ব্রিটিশ বাংলাদেশীরা অবদান রাখছে: ক্লেবারলি এমপি

এসবিনিউজ ডেস্ক: উৎসবমুখর আয়োজনে গত রোববার অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ইউকেবিসিসিআই বিজনেস অ্যান্ড এন্ট্রেপ্রেনার এক্সেলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০১৯। বিগত ১৬ এবং ১৭ সালের পর এবারের আয়োজন ছিল আরো বেশী অনুপ্রেরণীয়। এবারও মর্যাদাকর এ পুরস্কার প্রদান আয়োজনের ভেন্যু ছিল সেন্ট্রাল লন্ডনের দ্য লন্ডন হিলটন অন পার্ক লেন। ব্রিটিশ বাংলাদেশি ব্যবসায়ী উদ্যোক্তাদের সফলতার স্বীকৃতি স্বরূপ তৃতীয় বারের মতো এ আয়োজনে মোট ১২টি ক্যাটাগরিতে সফল ব্যবসায়ীদের  হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।

আইটিভির ব্রডকাস্টার এবং প্রেজেন্টার শামীনা আলী খানের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানের শুরুতেই শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সংগঠনের প্রেসিডেন্ট বজলুর রশিদ, এমবিই। তিনি তার বক্তব্যে পুরস্কার প্রদান আয়োজনকে ব্রিটেন ও বাংলাদেশী ব্যবসায়ীরা স্ব স্ব ক্ষেত্রে অবদানের কথা উল্লেখ করে বলেন ক্যাটারিং খাত ৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন অর্থের যোগান দিচ্ছে ব্রিটেনের ইকোনমিতে। তবে ব্রিটেনের ৫ লক্ষ বাংলাদেশী এদেশের আইটি খাত থেকে শুরু করে, আমদানী, রপ্তানি, চিকিৎসা, রিটেইল সহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সেক্টরে অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করছে। বাংলাদেশী ব্যবসায়ীদের মেধা ও পরিশ্রমে দেশের জিডিপি প্রতি বছর বৃদ্বি পাচ্ছে। আর এর পেছনের সেরাদের কৃতিত্ব গুরুত্ব সহকারে তুলে ধরাই এ আয়োজনের মূল লক্ষ্য।

প্রেসিডেন্ট আরো বলেন, ব্রিটেনে বেড়ে উঠা নতুন প্রজন্মকে আমাদের অর্জন তুলে ধরার পাশাপাশি তারা যেন আরো তাদের রোল মডেল খুজে নিতে পারে এবং উৎসাহ পায় তাই ইউকেবিসিসিআই এবারও ১২ টি গুরুত্বপূর্ণ ক্যাটাগরিতে সম্মননা প্রদান করেছে।

সংগঠনের চেয়ারম্যান ইকবাল আহমেদ, ওবিই, ডিবিএ বলেন, ব্রিটিশ অর্থনীতিতে আমরা সাফল্যের চিহ্ন রেখেছি। তবে সময় এসেছে বাংলাদেশ এবং ব্রিটেনের মধ্যকার ব্যবসায়িক সম্পর্ক বৃদ্বি করা। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ এখন সম্ভাবনাময় দেশ। আর তাই বাংলাদেশের সফল ব্যবসায়ীদের সাথে ব্রিটেনের সফল ব্যবসায়ীদের একই ছাতার নিচে নিয়ে আসার কাজটি করছে ইউকেবিসিসিআই। আর এতে করে দুই দেশের সাথে সম্পর্ক আরো দৃঢ় হবে বলে তিনি মনে করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ক্ষমতাসীন কনজার্ভেটিভ পার্টির চেয়ারম্যান রাইট অনারেবল জেইমস ক্লেবারলি এমপি বলেন, ব্রিটিশ বাংলাদেশীরা ব্রিটেনের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। আজকের সম্মাননা অনুষ্ঠানে সফল উদ্যোক্তারা প্রশংসার দাবীদার। তিনি আরো বলেন আগামী ৩১ শে অক্টোবর বেক্্িরট পরবর্তী সরকারের পলিসি যেন ব্যবসায়ীদের আরো উৎসাহিত করে সে লক্ষেই আমরা কাজ করছি। ইউকের পাশাপাশি আন্তর্জাতিকভাবে ব্যবসায়ীদের সহযোগীতার লক্ষে সরকার সব সময় উদগ্রীব এবং এবারও এর ব্যতিক্রম নয় বলে জানান তিনি।

এ বছর  ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তাদের ১২টি ভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুরস্কার প্রদান করা হয়। ইউকেবিসিসিআইয়ের মর্যাদাকর ‘আজীবন সম্মাননা’ পুরস্কার লাভ করেন এ্যাপেক্্র ফুটওয়্যার, পাইওনিয়্যার ইন্সুরেন্স ও মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান সৈয়দ মনজুর এলাহি।

তিনি তার বক্তব্যে ব্রিটেনে ও বাংলাদেশীদের  মধ্যে যোগসূত্র স্থাপনে ইউকেবিসিসিআই যে কাজ করছে তা প্রশংসনীয় বলে উল্লেখ করেন। তিনি আরো বলেন, একজন ব্যবসায়ী হিসাবে তিনি মনে করেন কঠোর পরিশ্রম, সততা, অধ্যবসায় ও নিষ্ঠা সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৈাছাতে পারে খুব সহজেই। তিনি ব্রিটিশ বাংলাদেশী সাফল্যের স্মারক দেখে অভিভূত। এসব সফল উদ্যোক্তাদের মেধা বাংলাদেশের অর্থনীতিতে ভুমিকা রাখতে পারে। আর তাই বাংলাদেশের সাথে ব্যবসায়িক সম্পর্ক বৃদ্ধিরও আহ্বান জানান তিনি।

এ ছাড়া ইউকেবিসিসিআই স্পেশাল রিকগনিশন অ্যাওয়ার্ডসে প্রদান করা হয় বিলেতের প্রাচীনতম সাপ্তাহিক পত্রিকা জনমত এবং সংগঠনের চয়েস অ্যাওয়ার্ডস প্রদান করা হয় ইউকের অন্যতম জনপ্রিয় টেলিভিশন চ্যানেল এসকে।

এছাড়া নতুন প্রজন্মের জন্য ইয়াং এন্ট্রেপ্রেনার অব দ্য ইয়ার, ইন্সপারেশনাল বিজনেস লিডার অব দ্য ইয়ার, রেস্টুরেন্ট অফ দা ইয়ার, ফ্যামিলি বিজনেজ অফ দা ইয়ার, বিজনেজ ওমেন অফ দা ইয়ার, কন্ট্রিভিউশন টু দি ইন্ড্রাস্ট্রী, বেস্ট নিউ বিজনেজসহ ১২টি অ্যাওয়ার্ডের মাধ্যমে তাদের সাফল্যের স্বীকৃতি প্রদান করা হয়।

আয়োজনে আরো উপস্থিত ছিলেন ব্রিটেনে নিযুক্ত বাংলাদেশি হাইকমিশনার হার এক্সেলেন্সি সাঈদা মুনা তাসনীম, বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো আসনের এমপি রুশনারা আলী, পল স্কালি এমপি লর্ড কারান বিলিমরিয়া, ইউকেবিসিসিআই ভাইস চেয়ারম্যান এম.এ. রউফ জেপি, ফাইনান্স ডাইরেক্টর নাজমুল ইসলাম নুুর, ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড এ্যাফেয়ার্স ডাইরেক্টর রহিমা মিয়াসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

পুরস্কার প্রদানের ফাঁকে ফাঁকে বিরতিতে শীর্ষ শিল্পীদের নাচ ও গানের পরিবেশনা ছিল বরাবরের মতো মনোমুগ্ধকর।

Related posts