রবিবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২০ | ১১ মাঘ ১৪২৬

Select your Top Menu from wp menus

প্রতিবন্ধীরা পরিবার ও সমাজেরই অবিচ্ছেদ্য অংশ: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

এসবিনিউজ ডেস্ক : প্রতিবন্ধিতা মানব বৈচিত্রেরই একটি অংশ উল্লেখ করে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা আমাদের পরিবার ও সমাজেরই অবিচ্ছেদ্য অংশ। তাদের বাদ দিয়ে অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতীয় উন্নয়ন সম্ভব নয়। তিনি বলেন শারীরিক প্রতিবন্ধীরা অনেকেই প্রতিভাবান। প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে তাদের প্রতিভার সঠিক বিকাশ ঘটাতে, অর্থনৈতিকভাবে স্বচ্ছলতা আনতে সকলকে কার্যকরী ভূমিকা পালন করতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী মঙ্গলবার বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল মিলনায়তনে ২৮তম আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস ২০১৯ উপলক্ষে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের মাঝে ল্যাপটপ বিতরণ অনষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

পলক বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন নিশ্চিত করতে ২০০৮ সালে নির্বাচনী ইশতেহারে রূপকল্প-২০২১ তথা ডিজিটাল বাংলাদেশের ঘোষণা করেন। তাঁর এই ঘোষণার মাধ্যমে অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন নিশ্চিত হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের সংবিধানে প্রতিবন্ধী-সুস্থ প্রত্যেক নাগরিকের জন্য সমতা, মর্যাদা ও সামাজিক সুবিচার নিশ্চিত করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।  ১৯৭৪ সালে দেশের ৪৭টি সাধারণ বিদ্যালয়ে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের সমন্বিত শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ করে দেন। একই বছর বঙ্গবন্ধু প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ ড. মুহাম্মদ কুদরাত-ই-খুদার নেতৃত্বে এ সংক্রান্ত শিক্ষানীতি প্রণয়ন করেছিলেন। কিন্তু তা বাস্তবায়নের পূর্বে পঁচাত্তরের ১৫ই আগস্ট জাতির পিতাকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যার মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বৈষম্যহীন একটি শিক্ষাব্যবস্থা গড়ে তোলার সম্ভাবনাকে নস্যাৎ করে দেয়া হয়।

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর ‘প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার ও সুরক্ষা আইন, ২০১৩’ এবং ‘নিউরো ডেভেলপমেন্টাল প্রতিবন্ধী সুরক্ষা ট্রাস্ট আইন, ২০১৩’ নামে দু’টি আইন পাশসহ বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছে। এর ফলে অটিজম ও এনডিডি বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন এবং সবধরণের প্রতিবন্ধী ব্যক্তির সমঅধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

পরে বিভিন্ন জেলা হতে আগত নির্বাচিত ৮০জন দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের মাঝে ল্যাপটপ বিতরণ করা হয়।  

Related posts