শনিবার, ৮ আগস্ট ২০২০ | ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭

Select your Top Menu from wp menus

পিরোজপুরে আমন চালের উৎপাদনে রেকর্ড

এসবিনিউজ ডেস্ক : জেলায় এবার আমন চালের উৎপাদন অতীতের সকল রেকর্ড অতিক্রম করেছে। চলতি বছরে আমন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ১ লক্ষ ২১ হাজার ৪৬৩ মে. টন নির্ধারণ করা হলেও উৎপাদন হয়েছে ১ লক্ষ ২২ হাজার ৪৯৯ মে. টন যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১ হাজার ৩৬ মে. টন বেশি।

পিরোজপুরের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানা গেছে, পিরোজপুর সদর উপজেলায় ১০ হাজার ১৫০ হেক্টরে ২০ হাজার ৭৫৫ মে. টন, ইন্দুরকানীতে ৫ হাজার ৪২৫ হেক্টরে ৯ হাজার ৭ শ’ ৮৩ মে. টন, কাউখালীতে ৪ হাজার ৬ শ’ ৪৫ হেক্টরে ৮ হাজার ৭ শ’ ২১ মে. টন, নেছারাবাদে ৯ হাজার ২৪৫ হেক্টরে ১৫ হাজার ১৪২ মে.টন, নাজিরপুরে ৬ হাজার ৯ শ’ ৫৮ হেক্টরে ১৪ হাজার ১৭৩ মে.টন, ভান্ডারিয়ায় ৮ হাজার ১৮৪ হেক্টরে ১৪ হাজার ৫৩ মে. টন এবং মঠবাড়িয়ায় ২০ হাজার ৩ শ’ ৭০ হেক্টরে ৩৯ হাজার ৮ শ’ ৭২ মে. টন চাল উৎপাদিত হয়েছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ সহকারি কৃষি কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে হাইব্রিড, উফশী, স্থানীয় রোপা, স্থানীয় বোনা মিলিয়ে ৬৪ হাজার ৯ শ’ ৭৭ হেক্টরে আমনের চাষ করা হয় এবং চাল উৎপাদনের পরিমাণ দাড়ায় ১ লাখ ২২ হাজার ৪ শ’ ৯৯ মে.টন।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো. আবুল হোসেন তালুকদার জানান আমন ধানের শীষ বের হওয়ার সময় আমন ফসলের কিছু কিছু ক্ষেতে পোকার আক্রমন শুরু হলেও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাদের উপদেশ অনুযায়ী কৃষকরা ব্যবস্থা নেয়ায় উৎপাদনের কোন ক্ষতি হয়নি। কৃষি বিভাগের উপ-সহকারী কর্মকর্তাগণ মাঠে মাঠে ঘুরে পাতামোড়ানো এবং পামরী পোকার দমনে আলোক ফাঁদ এবং পার্চিং পদ্ধতি ব্যবহারের পরামর্শ দেয়। সে অনুযায়ী চাষিরা ব্যবস্থা গ্রহণ করায় সহজেই পোকা দমন ও বিস্তার রোধ সম্ভব হয়।

এদিকে চাষিরা আমন চাষ মৌসুমে গুটি ইউরিয়া ব্যবহার করায় তাদের প্রায় ১৬ লাখ টাকা মূল্যের ১০৬ মে.টন সার এর সাশ্রয় হয়েছে। ২ হাজার ১১০ হেক্টরে আমন মৌসুমে ২ শ’ ৩২ মে.টন গুটি ইউরিয়া ব্যবহার করা হয়েছে। কৃষি বিভাগের একটি সূত্র জানিয়েছে, পিরোজপুরে ক্রমান্বয়ে গুটি ইউরিয়ার ব্যবহার চাষিদের কাছে জনপ্রিয় হচ্ছে।

 

 

Related posts