বুধবার, ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ❙ ২৪ মাঘ ১৪২৯

‘পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন মানা হচ্ছেনা’

স্টাফ রিপোর্টার: সোনালী আঁশের সোনার দেশ, জাতির পিতার বাংলাদেশ-এই শ্লোগান নিয়ে সারাদেশের ন্যায় বুধবার (৬ মার্চ) খুলনাতে জাতীয় পাট দিবস পালিত হয়। বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের পাট অধিদপ্তরের সহযোগিতায় খুলনা জেলা প্রশাসন দিবসটি পালনে সার্কিট হাউজ সম্মেলনকক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করে।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক জিয়াউর রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন খুলনার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক পঙ্কজ কান্তি মজুমদার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: বদিউজ্জামান, বিজেএমসির মহাব্যবস্থাপক গাজী সাহাদত হোসেন প্রমুখ। স্বাগত জানান পাট অধিদপ্তর খুলনার সহকারী পরিচালক মো: সিরাজুল ইসলাম।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, একসময় বিশ্বে সোনালি আঁশের দেশ হিসেবে বাংলাদেশের খ্যাতি ছিল। কিন্তু সচেতনতার অভাবে আজ আমরা সে খ্যাতি হারাতে বসেছি। পাট একাধারে কৃষিপণ্য এবং শিল্পপণ্য। এ পাট থেকে পুষ্টিকর শাক যেমন পাওয়া যায় তেমনি শিল্পক্ষেত্রে এর বহুমুখী ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে। ‘পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন ২০১০’ অনুসারে ধান, চাল, গম, সার, চিনিসহ মোট ১৯টি পণ্যে পাটজাত মোড়কের ব্যবহার বাধ্যতামূলক। এ আইন অমান্যকারীদের শাস্তি অনধিক এক বছরের কারাদন্ড বা অনধিক ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড বা উভয়দন্ড। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রে এ আইন মানা হচ্ছে না। পলিথিনের ব্যবহার নিষিদ্ধ হলেও বাজার এখন পলিব্যাগে ছয়লাব। পরিবেশের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর এই পলিব্যাগ ব্যবহার বন্ধে স্কুল পর্যায় থেকে জনসচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি আইনের কঠোর প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে।
অনুষ্ঠানে বিজেএমসির বিভিন্ন পাটকল, খুলনা জুট গুডস মার্চেন্ট এ্যাসোসিয়েশন, খুলনা মহানগর পাটপণ্য ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি, চাল কল মালিক সমিতি, চাল ব্যবসায়ী সমিতির প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন।
দিবসটি পালন উপলক্ষে একটি বর্ণাঢ্য র্যা লি হাদীস পার্ক থেকে শুরু করে খুলনা সার্কিট হাউজে গিয়ে শেষ হয়।

Related posts