বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৭ ফাল্গুন ১৪২৬

Select your Top Menu from wp menus

পদ্মা সেতুর স্বপ্নদ্রষ্টা প্রধানমন্ত্রীর যে দৃশ্য আবেগে ভাসালো

এসবিনিউজ ডেস্ক: শত বাধা-বিপত্তি আর চ্যালেঞ্জ উড়িয়ে দিয়ে অসম্ভবকে সম্ভব করে পদ্মা সেতুকে বাস্তবে রূপ দিলেন যিনি, সেই স্বপ্নদ্রষ্টা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজের হাতে মোবাইলে ফোনের ক্যামেরায় ধারন করলেন স্বপ্নের এই সেতু।

শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর উপ প্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকন নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে প্রধানমন্ত্রীর পদ্ধা সেতুর ছবি তোলার ভিডিও পোস্ট দেয়ার পর তা এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল।

ভিডিওতে দেখা যায় প্রধানমন্ত্রী নিজে হেলিকপ্টারের জানালা দিয়ে মোবাইলে ছবি ধারণ করছেন। এ সময় তাকে বেশ হাস্যোজ্জ্বল দেখা যায়।

ভিডিও শেয়ার করে আশরাফুল আলম খোকন লিখেছেন, ‘স্বপ্নের পদ্মা ব্রিজ আজ বাস্তবে রূপ নিচ্ছে। গভীর মমতায় পদ্মা ব্রিজ নির্মাণের অগ্রগতি দেখছেন এই স্বপ্নের স্বপ্নদ্রষ্টা ও বাস্তবায়নের কারিগর আমাদের পরম শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’

তার ওই পোষ্টের নিচে প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করে তার নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করছেন সবাই। তারা বলছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই উন্নত জীবনের স্বপ্ন দেখেন তারা। আগামীর বাংলাদেশ হবে ক্ষুধা ও দারিদ্র মুক্ত। একজন লিখেছেন, যতদিন শেখ হাসিনার হাতে দেশ পথ হারাবে না বাংলাদেশ। আরেকজন লিখেছেন, অসম্ভব কে সম্ভব করে বাস্তবে রুপ দেওয়ার সাহসী নেতা বঙ্গবন্ধু কন্যা বিশ্ব মানবতার মা মহান সফল রাষ্ট্র নায়ক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এমন আরো কমেন্ট করেছে অনেকে, যেখানে ফুটে উঠেছে রাষ্টনায়ক শেখ হাসিনার প্রতি অকৃত্রিম শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা।

আওয়ামী লীগের ২১তম নবগঠিত কমিটির শীর্ষ নেতাদের নিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে ঢাকায় ফেরার পথে পদ্মা নদীর উপর হেলিকপ্টার থেকে সেতুর ছবি মোবাইলে ধারন করেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গত বৃহস্পতিবার ২২তম স্প্যান বসানোর মধ্য দিয়ে ৩ হাজার ৩শ মিটার (৩.৩ কিলোমিটার) দৃশ্যমান হলো পদ্মাসেতুর। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ফাস্ট ট্র্যাক মনিটরিং কমিটির পঞ্চম সভায় জানানো হয়, পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় জাজিরা প্রান্তে অ্যাপ্রোচ রোডের কাজ-৯১ শতাংশ, মাওয়া প্রান্তে অ্যাপ্রোচ রোডের কাজ-১০০ শতাংশ, সার্ভিস এরিয়া (২)-১০০ শতাংশ, মূলসেতু নির্মাণ কাজ ৮৫.৫০ শতাংশ এবং নদীশাসনের কাজ ৬৬ শতাংশ শেষ হয়েছে। প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি ৭৬.৫০ শতাংশ শেষ হয়েছে।

Related posts