শুক্রবার, ৫ জুন ২০২০ | ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

Select your Top Menu from wp menus

নতুন পরীক্ষা পদ্ধতি পাঁচ মিনিটেই রিপোর্ট

এসবিনিউজ ডেস্ক: এক-দুই দিন নয়, মাত্র পাঁচ মিনিটেই জানা যাবে কারো শরীরে নতুন করোনা ভাইরাস বা কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ হয়েছে কি না। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক একটি পরীক্ষাগার দাবি করেছে, তারা এমন একটি বহনযোগ্য পরীক্ষা পদ্ধতি আবিষ্কার করেছে, যার মাধ্যমে পাঁচ মিনিটেই করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া সম্ভব। অ্যাবট ল্যাবরেটরিজ নামের ওই প্রতিষ্ঠান শুক্রবার এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানিয়েছে বলে বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়েছে।

অ্যাবট বলেছে, মার্কিন খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন (এফডিএ) করোনা ভাইরাস শনাক্তে জরুরি ক্ষেত্রে ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে। আগামী সপ্তাহের শুরুতেই এই পরীক্ষা পদ্ধতি স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীদের কাছে পৌঁছবে। যন্ত্রটি কোনো ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত কি না তা পাঁচ মিনিটেই জানিয়ে দেবে। আবার কারোর দেহে সংক্রমণের সম্ভাবনা না থাকলে তাও মাত্র ১৩ মিনিটের মধ্যেই জানিয়ে দিতে সক্ষম হবে। এই যন্ত্রটি ইতিমধ্যেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ইনফ্লুয়েঞ্জা এ এবং বি, স্ট্রিপ এ এবং আরএসভি পরীক্ষার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে।

সংস্থাটির দাবি অনুযায়ী, ছোটো টোস্টারের আকারের এই নতুন যন্ত্রটি মলিকিউলার টেকনোলজির সাহায্যে কাজ করবে। যন্ত্রটি আকারে ছোটো হওয়ায় সহজেই এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যাওয়া যাবে। অ্যাবটের প্রেসিডেন্ট এবং প্রধান অপারেটিং অফিসার রবার্ট ফোর্ড বলেন, যন্ত্রটি ছোটো হওয়ায় এটি হাসপাতাল ভবনের মধ্যে রাখার প্রয়োজন হবে না। ভবনের বাইরে রেখেই কাজ করা যাবে। এফডিএ এখনো এই পদ্ধতির অনুমোদন দেয়নি। শুধু জরুরিভাবে ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে।

বিশ্ব জুড়ে, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ক্রমাগত বাড়ছে। বর্তমানে এই ভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরি করতে দিন-রাত এক করে পরিশ্রম করছেন বিজ্ঞানীরা। পাশাপাশি এই ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্তে পরীক্ষা-কিটও তৈরির চেষ্টাও চলছে। বর্তমানে এক জন মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কি না তা জানতে কমপক্ষে একদিন সময় লাগছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোভিড-১৯ কে শুরুতেই শনাক্ত করতে পারলে বিস্তার অনেকটা ঠেকানো সম্ভব হতে পারে। জার্মানি এবং দক্ষিণ কোরিয়ার মতো দেশগুলোতে এই পরীক্ষা পদ্ধতি ভালো হওয়ায় বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় ওই দুটি দেশে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা ও মৃত্যু হারও কম। অন্যদিকে ভালো পরীক্ষা পদ্ধতির অভাবে এখন লাফিয়ে লাফিয়ে করোনা সংক্রমণ বাড়ছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইতালিতে।

 

Related posts