মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১ | ৩০ চৈত্র ১৪২৭

Select your Top Menu from wp menus

দৈনন্দিন সমস্যার সহজ সমাধান দিয়েছে ‘নগদ’

এসবিনিউজ ডেস্ক: হেলাল শেখ, একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের গাড়িচালক। ছুটির দিন ব্যতীত সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত তিনি অফিসে ব্যস্ত থাকেন।
ছুটির দিনে পরিবারে সময় দিলেও সংসারের কিছু নিয়মিত কাজের জন্য তাকে প্রতিমাসে দুই-একদিনের ছুটি নিতে হতো। হেলাল শেখের পারিবারিক কাজগুলোর মধ্যে অন্যতম ছিল বিদ্যুৎ ও গ্যাসের বিল পরিশোধ করতে ব্যাংকে যাওয়া। করোনার মধ্যে অনেক কষ্ট হলেও হেলাল শেখ মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ইউলিটি বিল পরিশোধের জ্ঞান রপ্ত করেছেন। ফলে এখন আর এসব কাজের জন্য তাকে ছুটি নিতে হয় না। যখন খুশি ঘরে বসেই বিদ্যুৎ,পানি ও গ্যাস বিল পরিশোধ করছেন বাংলাদেশ ডাক বিভাগের ডিজিটাল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ‘নগদ’ এর মাধ্যমে।
শুধু হেলাল শেখ একা নন। একটা সময় ছিল যখন ইউলিটি বিল পরিশোধের জন্য ৫০-১০০ টাকা খরচ করে গাড়িতে ব্যাংকে গিয়ে লাইনে দাড়িয়ে অপেক্ষা করতে হতো। বিল দিতে গিয়ে টাকা খরচ ও ভোগান্তির সেই দিনগুলো এখন শুধুই ইতিহাস!
বাংলাদেশ ডাক বিভাগের ডিজিটাল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ‘নগদ’এ এখন সব ধরনের ইউটিলিটি বিল যেকোনো সময় ঘরে বসেই পরিশোধ করা যাচ্ছে সম্পূর্ণ ফ্রিতে।
কোনো ভোগান্তি ও টাকা খরচ ছাড়া চাইলে মুহূর্তেই বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানি ও ইন্টারনেট বিলসহ সব ধরনের ইউটিলিটি বিল ‘নগদ’এ প্রদান করা যায়।
‘নগদ’র সেবার বিষয়ে ঢাকার জিগাতলার বাসিন্দা মো. শামসুল আলম বলেন, এখন যেকোনো বিল ঘরে বসে দেওয়া যায়। সরকারি সেবা ‘নগদ’-এ অতিরিক্ত কোনো ফি নেই, যে কারণে এই সেবাই ব্যবহার করেন তিনি। এছাড়া সর্বনিম্ন ক্যাশ আউট চার্জ শুধু ‘নগদ’-ই প্রদান করছে, যে কারণে প্রথম পছন্দ হিসেবে তিনি ‘নগদ’-কে বেছে নিয়েছেন।
সরকারি এই সেবাটি বাজারে আসার দুই বছরপূর্তি হলো বাংলাদেশের ৫১তম জন্মদিনে। যাত্রা শুরুর দুই বছরের মধ্যে তিন কোটি ৮০ লাখের বেশি গ্রাহক ভিত্তি তৈরি করেছে প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়া দৈনিক প্রায় ৪০০ কোটি টাকা লেনদেন করছেন নবীন এই সেবাটি। গ্রাহক ভিত্তি তৈরির ক্ষেত্রেও অভিনবত্ব এনেছে ‘নগদ’। একসময় কোনো অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য পাতার পর পাতা ফরম পূরণ করতে হতো। এখন *১৬৭# ডায়াল করে পিন সেট করে যে কেউ হয়ে যেতে পারেন ‘নগদ’ গ্রাহক। এই পদ্ধতিতে প্রতিটি মোবাইল অপারেটর একজন গ্রাহকের নাম, জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর ও মোবাইল নম্বর ‘নগদ’-কে প্রদান করে, এরপর ‘নগদ’ কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন থেকে অন্যান্য তথ্য যাচাই করে একজন ব্যক্তির অ্যাকউন্ট খুলে থাকে।
এ বিষয়ে ‘নগদ’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর এ মিশুক বলেন, বাংলাদেশে একসময় মোবাইল অ্যাকাউন্ট খোলার কোনো তদারকি হতো না, এর ফলে অবৈধ একাউন্ট নজরদারি করা সম্ভব হতো না। ‘নগদ’-ই প্রথম ই-কেওয়াইসি নিয়ে আসে, এর ফলে অবৈধ অ্যাকাউন্ট খোলার প্রক্রিয়া শতভাগ বন্ধ হয়ে যায়। কারণ বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন থেকে যাচাই করে তবেই একটি অ্যাকাউন্ট খোলার অনুমতি দেয় ‘নগদ’।
তিনি বলেন, এছাড়া দেশের মানুষকে সেবা দেওয়ার জন্য ‘নগদ’ যেকোনো ইউটিলিটি বিল প্রদানের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের অতিরিক্ত ফি নেয় না, ফলে গ্রাহকের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে সরকারি সেবা ‘নগদ’।
‘নগদ’ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে আরও জানা যায়, দেশের বেশিরভাগ মানুষ এখনো আর্থিক অন্তর্ভুক্তির বাইরে রয়েছে। এই বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে ‘নগদ’ সাধারণ মানুষের জন্য সহজ হয় এমন সেবা ও প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে। মানুষ দৈনন্দিন যেসব কাজ করে থাকে, সব ধরনের সেবাই যেন ‘নগদ’-এ পাওয়া যায়, সেই বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে ‘নগদ’। আগামী দিনে জাতীয় ওয়ালেট হওয়ার লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে চলেছে রাষ্ট্রীয় এই সেবা।
পাশাপাশি বাজারে কোনো এমএফএস প্রতিষ্ঠান যাতে একচেটিয়া প্রভাব বিস্তার করতে না পারে, সেদিকেও নজর দিয়ে কাজ করছে ‘নগদ’। ফলে সর্বনিম্ন ক্যাশ আউট চার্জ, ইউটিলিটি বিল ফ্রি, সেন্ড মানি ফ্রি এবং স্বচ্ছ লেনদেন ব্যবস্থা দাড় করাতে সক্ষম হয়েছে সরকারি সেবা ‘নগদ’।
এছাড়াও সরকারি সেবা হিসেবে সরকারের প্রথম পছন্দ ‘নগদ’। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উপবৃত্তি থেকে শুরু করে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের ভাতা, প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার এবং অসহায় কৃষকদের কাছে সরকারি ভাতা পৌঁছে দিচ্ছে ‘নগদ’। ‘নগদ’র প্রভাব বাজারে ইতোমধ্যে পড়তে শুরু করেছে, যার প্রমাণ পাওয়া যায় অনেক প্রতিষ্ঠান ক্যাশ আউট চার্জ কমানোর বিষয়ে কাজ করছে। এছাড়া সেন্ড মানি ফ্রি করার বিষয়েও ইদানীং কাজ করছে। এসবই ‘নগদ’র অবদান। সামনের দিনে ‘নগদ’ দেশের জাতীয় ওয়ালেট হওয়ার জন্য কাজ করছে। মানুষের অর্থনৈতিক সব ধরনের সমস্যার সমাধান যেন ‘নগদ’-এ পাওয়া যায়, সেই প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে ‘নগদ’। এছাড়া দেশের প্রথম ডিজিটাল ব্যাংক হিসেবে কাজ করার জন্যও ‘নগদ’ প্রস্তুতি নিয়েছে, সরকারের পক্ষ থেকে ইতিবাচক নির্দেশনা পেলে ‘নগদ’ যেকোনো সময় এই সেবা দিতেও প্রস্তুত।

Related posts