মঙ্গলবার, ২ জুন ২০২০ | ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

Select your Top Menu from wp menus

দাকোপে সামাজিক দূরত্ব মানছে না অনেকেই

দাকোপ(খুলনা) প্রতিনিধি: সামাজিক দূরত্ব মানতে চায় না দাকোপের গ্রাম-গঞ্জের বহু মানুষ। তাদের নিয়ন্ত্রণ করতে  হিমশিম খাচ্ছে উপজেলা প্রশাসন।

সারা পৃথিবীতে করোনা মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। গত ৪এপ্রিল পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে দশ লাখ ছাড়িয়েছে। প্রতি মিনিটে আক্রান্ত হচ্ছে ৫০ জন, মারা যাচ্ছে ৪ জন। আমাদের দেশেও দিন যত যাচ্ছে আক্রান্তের সংখ্যা তত বাড়ছে। এমন অবস্থায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ডব্লিউএইচও বলছে, ঘরে থেকে এ দূর্যোগ মোকাবেলা করতে হবে, করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে হবে। সামাজিক দূরত্ব বাড়াতে হবে তাছাড়া নিস্তার নেই। ফ্রান্স, সিঙ্গাপুর, ইতালী , স্পেনসহ বহুদেশ লকডাউন ঘোষনা করেছে। গণসচেতনতার জন্যে আমাদের দেশেও রিতিমত মাইকিং চলছে, চলছে লিফলেট বিতরণ, রেডিও, টিভি সামাজিক গণমাধ্যম তো রয়েছেই কিন্তু কে শোনে কার কথা! বিশেষ করে গ্রাম-গঞ্জের মানুষকে বিষয়টি বোঝাতে হিমশিম খাচ্ছে উপজেলা প্রশাসন।

সম্প্রতি দাকোপের ৯টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা ঘুরে দেখা যায়, মেজিস্ট্রেট,পুলিশ, সামরিক বাহিনীর গাড়ী এলে মানুষ হুমড়ি খেয়ে পালায় আবার গাড়ী চলে গেলে পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসে। মনে হয় করোনার চেয়ে এরা  প্রশাসনকে বেশী ভয় পায়। স্থানীয় চায়ের দোকানগুলোতে দরজা বন্ধ করে রিতিমত চলছে ব্যবসা ও আড্ডা।  বাজুয়া, বটবুনিয়া, নলিয়ান ও চালনাতে হাটের দিন দেখা যাচ্ছে মানুষের উপচে পড়া ভীড়। তাহলে এখানকার নিরাপত্তা কোথায়? সচেতন মানুষের কথায় এ মানুষগুলো একটুও গুরুত্ব দিচ্ছে না। গ্রাম-গঞ্জের মানুষ এখনও দলবদ্ধভাবে মাঠে কাজ করছে এবং একইসাথে মাঠে বসে খাওয়া-দাওয়া করছে। মন্দির, মসজিদে চলছে দলবদ্ধভাবে প্রার্থনা। করোনা নিয়ে তাদের মধ্যে একটুও সংশয় নেই। কৈলাশগঞ্জের একজন সাধারণ গৃহিনী আকলিমা বলেন, ‘করুনা আল্লায় দিছে আবার আল্লা সময়মত সরাই দিবে’।

দাকোপ উপজেলা আ’লীগের সভাপতি এবং সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আবুল হোসেন বলেন, তিনটি দ্বীপ নিয়ে দাকোপ উপজেলা, এখানকার রাস্তা-ঘাট ভালো না, একটি পোল্ডার থেকে অন্য পোল্ডারে যেতে নেই কোনো ব্রীজ। সরাসরি গাড়ী নিয়ে কোথাও যাওয়া যায় না। তাই সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে এবং নিয়ন্ত্রণ করতে প্রশাসনকে বেগ পেতে হচ্ছে। তারপরও করোনা মোকাবেলায় সবাইকে সরকারের নির্দেশ মেনে চলার আহবান জানান তিনি।

এদিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য খাদ্যসামগ্রী বিতরণ, সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখা, দোকানপাঠ বন্ধ রাখা, মানুষ যেন যার যার বাড়ীতে অবস্থান করে, এলাকার আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি শান্ত রাখা, সর্বোপরি মানুষকে এই মহাদূর্যোগে সচেতন করার জন্য, দাকোপ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দিনরাত প্রাণপন চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁর বাহিনী সাথে নিয়ে। সকল সরকারী কর্মকর্তাকে দায়িত্ব বন্টন করে সরাসরি মাঠে নেমে মনিটরিং করছেন নিজে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আবদুল ওয়াদুদ বলেন, মানুষকে ভদ্রভাবে বললে কথা শুনতে চায় না। দেশকে ভালোবেসে, মানুষকে ভালোবেসে, নিজেকে ভালোবেসে বর্তমান এই দূর্যোগকে মোকাবেলা করতে সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী একে অপরকে সহযোগীতা করতে হবে, সরকারী নির্দেশ মেনে চলতে হবে। তাহলে কোনো সমস্যা হবে না।

Related posts