সোমবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

Select your Top Menu from wp menus

খুলনায় ডায়াগনস্টিকের ম্যানেজার হত্যার দায়ে ৩ জনের যাবজ্জীবন

স্টাফ রিপোর্টার: খুলনায় আলোচিত সেতু ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ম্যানেজার মো. ইউনুস আলীকে জবাই করে হত্যা এবং অর্থ লুটের দায়ে তিন আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদ- প্রদান করা হয়েছে। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরো ৬ মাসের কারাদ- দেয়া হয়েছে। এছাড়া দ-বিধির ৩৮০ ধারায় উল্লিখিত আসামিদের প্রত্যেককে ৭ বছর করে কারাদ- ও ৫ হাজার টাকা জরিমান, অনাদায়ে আরো ৬ মাসের কারাদ- দেয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে খুলনার অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক রোজিনা আক্তার এ রায় ঘোষণা করেন। রায়ে অপর তিন আসামিকে দ-বিধির ২০১ ধারায় ২ মাসের কারাদ-, ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদ- দেওয়া হয়। 

যাবজ্জীবন কারাদ-প্রাপ্তরা হলেন খুলনা মহানগরীর ফুলবাড়িগেটস্থ দারোগা বাজার এলাকার শেখ শাহারিয়ার হোসেনের ছেলে মো. সাব্বির হোসেন ওরফে তপু, একই এলাকার শেখ দেলোয়ার হোসেনের ছেলে শেখ রুবায়েত হোসেন ওরফে রুবেল ও নগরীর মৌলভীপাড়া টিভি বাউন্ডারি রোডস্থ চেয়ারম্যান বাড়ির ভাড়াটিয়া (গ্রাম-নুরুল্লাপুর, উপজেলা- মোরেলগঞ্জ, জেলা-বাগেরহাট) আব্দুল কালাম শেখের ছেলে মো. সোহেল শেখ।

২ মাসের কারাদন্ড কারাদ-প্রাপ্তরা হলেন নগরীর দৌলতপুরস্থ মহেশ্বরপাশা এলাকার মৃত আনোয়ার হোসেনের ছেলে রানা কবির, হাফিজুর রহমান ও পংকজ শীল। রায় ঘোষণার সময় রানা কবির ছাড়া অন্য ৫ আসামি আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।

আদালত সূত্র জানায়, ২০১১ সালের ১৩ জুন ভোরে দুর্বৃত্তরা নগরীর সাউথ সেন্ট্রাল রোডস্থ সেতু ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ম্যানেজার মো. ইউনুস আলীকে জবাই করে হত্যার পর প্রতিষ্ঠানের ক্যাশ কাউন্টার থেকে ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা লুট করে পালিয়ে যায়। নিহত ইউনুস আলী রূপসা উপজেলার মহিশাঘুনি গ্রামের আব্দুল আওয়াল মোড়লের ছেলে।

এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই মো. আমজাদ হোসেন মোড়ল বাদি হয়ে ঘটনার দিনই খুলনা সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা খুলনা থানার তৎকালীন এসআই কাজী মোস্তাক আহমেদ দ-প্রাপ্ত ৬জনকে অভিযুক্ত করে একই বছরের ৭ সেপ্টেম্বর আদালতে চাজর্শিট দাখিল করেন। রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন এপিপি অ্যাডভোকেট সাব্বির আহমেদ।

Related posts