রবিবার, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ❙ ২২ মাঘ ১৪২৯

খুলনার পাটকলে রাজপথ-রেলপথ অবরোধ মঙ্গলবার

স্টাফ রিপোর্টার: গত ২৮ মার্চের মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকদের নয় দফা প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন না হওয়ায় আবারো রাজপথে নেমেছেন পাটকল শ্রমিকরা। বাংলাদেশ পাটকল শ্রমিক লীগের খুলনা-যশোর অঞ্চলের আহ্বায়ক ও ক্রিসেন্ট জুট মিলের সিবিএ সভাপতি মোঃ মুরাদ হোসেন নতুন কর্মসূচীর কথা জানান।
ঘোষিত কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, আগামীকাল ১ এপ্রিল সোমবার সকাল ৯টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত রাজপথে লাল পতাকাসহ লাঠি মিছিল, ২, ৩ ও ৪ এপ্রিল মঙ্গলবার, বুধবার ও বৃহস্পতিবার টানা ৭২ ঘন্টা পাটকলে ধর্মঘট এবং প্রতিদিন সকাল ৮ টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত চার ঘন্টা করে রাজপথ ও রেলপথ অবরোধ। এছাড়া ওই সময়ের মধ্যে দাবি বাস্তবায়ন না হলে আগামী ৭ এপ্রিল ঢাকায় সংগঠনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পাটকল শ্রমিকলীগ ও সিবিএ নেতৃবৃন্দের যৌথ বৈঠকের মাধ্যমে পরবর্তী কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।
বাংলাদেশ পাটকল শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সরদার মোতাহার উদ্দিন বলেন, দীর্ঘদিনেও রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকদের মজুরি কমিশন বাস্তবায়ন হয়নি। একই সাথে শ্রমিকরা নিয়মিত সাপ্তাহিক মজুরিও পাচ্ছে না। ফলে শ্রমিকদের পরিবার-পরিজন নিয়ে অর্ধাহারে-অনাহারে দিন অতিবাহিত করতে হচ্ছে। এ অবস্থায় শ্রমিকদের ন্যায্য দাবি আদায়ে আন্দোলনের কোন বিকল্প নেই। তিনি জানান, খালিশপুরের ক্রিসেন্ট, প্লাটিনাম, খালিশপুর, দৌলতপুর, দিঘলিয়ার স্টার, আটরার আলিম, ইস্টার্ন এবং যশোরের নওয়াপাড়া শিল্প এলাকার কার্পেটিং ও জেজেআই মিলে এ কর্মসূচি চলবে।
উল্লেখ্য, নয় দফা দাবির মধ্যে রয়েছে, নিয়মিত সাপ্তাহিক মজুরি ও বেতন প্রদান, সরকার ঘোষিত জাতীয় মজুরি ও উৎপাদনশীলতা কমিশন-২০১৫ বাস্তবায়ন, অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিক কর্মচারীদের পিএফ-গ্রাচ্যুইটি ও মৃত শ্রমিকদের বীমার বকেয়া প্রদান, টার্মিনেশন ও বরখাস্তকৃত শ্রমিকদের কাজে পুনর্বহাল, সেটআপ অনুযায়ী শ্রমিক-কর্মচারীদের নিয়োগ ও স্থায়ী করা, পাট মৌসুমে পাট কেনার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ, উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে মিলগুলোকে পর্যায়ক্রমে বিএমআরই করা।

Related posts