শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

Select your Top Menu from wp menus

খুবির ভর্তি পরীক্ষায় মোবাইলসহ ইলেক্ট্রোনিক ডিভাইস নিষিদ্ধ

স্টাফ রিপোর্টার: আগামী ২ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার সময় নিরাপত্তা ব্যবস্থাসহ সার্বিক বিষয় নিয়ে মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ প্রশাসন ভবনের সম্মেলন কক্ষে প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতিনিধিদের সাথে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান সভায় সভাপতিত্ব করেন। সভায় উপাচার্য আগামী ২ নভেম্বর ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট সকল মহলের সহযোগিতা কামনা করেন।

সভায় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পরীক্ষা অনুষ্ঠানের বিভিন্ন দিক পর্যালোচনা করে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। গল্লামারী ব্রিজ থেকে জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত পরীক্ষার দিন সকাল ৭ টা থেকে বিকেল ৬টা পর্যন্ত সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিচ্ছু পরীক্ষার্থী ছাড়াও উক্ত তারিখ (২ নভেম্বর) অনুষ্ঠিতব্য জেএসসি পরীক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের খুলনা-সাতক্ষীরা সড়ক দিয়ে জিরো পয়েন্ট থেকে গল্লামারী চলাচল করতে পারবে। ভর্তি পরীক্ষায় কোনো পরীক্ষার্থী খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বা কুয়েট ও রেভারেন্ড পল্স হাই স্কুল উপ-কেন্দ্রে মোবাইল ফোন বা কোনো প্রকার ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস সঙ্গে নিয়ে প্রবেশ করতে পারবে না, কর্তৃপক্ষ মোবাইল ফোন সংরক্ষণের কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করবে না। প্রয়োজন হলে পরীক্ষার্থীরা শুধু ট্রান্সপারেন্ট (স্বচ্ছ) সাদা প্লাস্টিক ফাইল সাথে আনতে পারবে। পরীক্ষা কেন্দ্রে পরীক্ষার্থীদের মুখম-ল ও কান অনাবৃত রাখতে হবে। অপরদিকে ভর্তি পরীক্ষায় দায়িত্বরত অবস্থায় শিক্ষক ও কর্মচারী মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না।

নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ক্যাম্পসের মেইন গেট দিয়ে পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশের সময় পরীক্ষার্থীদের তল্লাশী করা হবে। গাড়ী পার্কিং এর জন্য জিরো পয়েন্ট এবং তার আশপাশের এলাকা ব্যাবহারের সুবিধা রাখা হবে। এ সময় বিকল্প পথ হিসেবে সোনাডাঙ্গা বাইপাস হয়ে রূপসা সংযোগ সড়ক দিয়ে জিরো পয়েন্ট হয়ে যানবাহন চলাচল করতে পারবে। এছাড়া কুয়েট ও রেভারেন্ড পল্স হাই স্কুল উপ-কেন্দ্র এলাকায় অনুরূপভাবে সে এলাকায় অবস্থিত সড়কসমূহে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও ট্রাফিক বিভাগ যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রণ করবে।

ভর্তি সংক্রান্ত তথ্য-চিত্রের প্রয়োজন হলে ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার প্রতিনিধিবৃন্দকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ ও প্রকাশনা বিভাগের সাথে আগেই যোগাযোগ করতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। ক্যাম্পাস ও ক্যাম্পাসের বাইরে আশপাশের নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা রক্ষায় অতিরিক্ত পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থা, র‌্যাব ও সাদাপোশাকে নিরাপত্তা সদস্যদের এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনসিসি সদস্যদের দায়িত্ব পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর সাধন রঞ্জন ঘোষ, ডিনবৃন্দ, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত), ছাত্রবিষয়ক পরিচালক, প্রভোস্টবৃন্দ ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ এবং কেএমপিসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণের জন্য খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের মূল কেন্দ্র ছাড়াও খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) এবং রেভারেন্ড পল্স হাই স্কুল উপ-কেন্দ্রে আসন বিন্যাস সম্পন্ন হয়েছে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় মূলকেন্দ্রে ১ থেকে ৫১৮৪, কুয়েট উপকেন্দ্রে ৫১৮৫ থেকে ১২৫৩৩ এবং রেভারেন্ড পলস উপকেন্দ্রে ১২৫৩৪ থেকে ১৪৬২৩ পর্যন্ত রোল নম্বরধারীদের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

২ নভেম্বর শনিবার সকাল ৮ টা থেকে ৯-৩০ টা পর্যন্ত ‘সি’ ইউনিটের অধীন ব্যাবস্থাপনা ও ব্যবসায় প্রশাসন স্কুলের ভর্তি পরীক্ষা কেবলমাত্র খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস মূলকেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে।

সকাল ১০-৩০ টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত ‘এ’ ইউনিটের অধীন বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুল এবং জীব বিজ্ঞান স্কুলের ভর্তি পরীক্ষা খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের মূল কেন্দ্র, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) এবং রেভারেন্ড পল্স হাই স্কুল উপ-কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে।

দুপুর ১-৩০ টা থেকে ৩ টা পর্যন্ত ‘বি’ ইউনিটের অধীন কলা ও মানবিক স্কুল, সামাজিক বিজ্ঞান স্কুল, আইন স্কুল এবং শিক্ষা স্কুলের ভর্তি পরীক্ষা খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের মূল কেন্দ্র এবং খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) উপ-কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে।

বিকেল ৪ টা থেকে ৫-৩০ টা পর্যন্ত ‘ডি’ ইউনিটের অধীনে চারুকলা স্কুলের ভর্তি পরীক্ষা খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের মূল কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে।

উল্লেখ্য, এ বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের চারটি ইউনিটের অধীন ৮টি স্কুলের অন্তর্ভূক্ত ২৯টি ডিসিপ্লিনে ১২১৭ আসনে (মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও উপজাতি কোটাসহ) ভর্তির জন্য অনলাইনে ৩২ হাজার ৬ শত ৩৬ জন আবেদন করেছেন। আসন প্রতি ভর্তিচ্ছু পরীক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ২৭ জন।

Related posts