শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩ ❙ ১৪ মাঘ ১৪২৯

খুবির এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনে গবেষণা প্রস্তাবনার উপস্থাপনা শুরু

স্টাফ রিপোর্টার: খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনে মাস্টার্স ইন প্যাথলজি এবং মাস্টার্স ইন এগ্রোনমির শিক্ষার্থীদের ৩১টি গবেষণা প্রস্তাবের সারসংক্ষেপ উপস্থাপনা সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) ডিসিপ্লিনের সম্প্রসারণ গবেষণা ল্যাবে শুরু হয়েছে।
চারদিনব্যাপী এই গবেষণা প্রস্তাবের সারসংক্ষেপ উপস্থাপনায় গবেষণার শিরোনাম, গবেষণার পদ্ধতি, আউটকাম ও আউটপুটসহ বিভিন্ন কলাকৌশল ও অভিষ্ট দিক তুলে ধরা হবে। মাস্টার্স পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের গবেষণার দক্ষতা বৃদ্ধি এবং গবেষণাকর্ম যাতে যথাযথ ও ফলপ্রসূ হয় সে লক্ষ্যে সারসংক্ষেপ উপস্থাপনা করা হয়ে থাকে।
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়কে একটি কোয়ালিটি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে প্রতিষ্ঠার জন্য সকল ডিসিপ্লিনে মানসম্মত গবেষণার ওপর জোর দেয়া হয়েছে এবং এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ¯œাতক ও ¯œাতকোত্তর সকল শিক্ষার্থীকে থিসিসের আওতায় আনা হয়েছে। এ প্রেক্ষাপটে এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনে মাস্টার্সের শিক্ষার্থীদের প্রস্তাবিত গবেষণার সারসংক্ষেপ তুলে ধরার মাধ্যমে বিভিন্ন দিক প্রাথমিকভাবেই পর্যালোচনায় উঠে আসবে যাতে গবেষণাকর্মটি ফলপ্রসূ হয়।
এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিন প্রধান (চলতি দায়িত্ব) প্রফেসর ড. মোঃ সারওয়ার জাহানের সভাপতিত্বে চারদিনব্যাপী এই গবেষণা প্রস্তাবনার সারসংক্ষেপ উপস্থাপনা অনুষ্ঠানের সূচনা অনুষ্ঠানে ডিসিপ্লিনের জ্যেষ্ঠতম শিক্ষক নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য এবং ইউজিসির কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্স ইউনিটের সাবেক প্রধান প্রফেসর ড. সঞ্জয় কুমার অধিকারী, প্রফেসর ড. মোঃ ইয়াছিন আলী. প্রফেসর ড. মোঃ আব্দুল মান্নান, প্রফেসর ড. মোঃ এনামুল হক, প্রফেসর ড. সাবিহা সুলতানা, সহকারি অধ্যাপক ছোঁয়া মন্ডল এবং গবেষণা প্রস্তাবের সাথে মাস্টার্সের সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, এই সারসংক্ষেপ উপস্থাপনের ফলে গবেষণার বিষয় নির্ধারণের প্রথমেই ত্রুটিসমূহ বিমুক্ত করা সম্ভব হবে এবং ডিসিপ্লিনের একাডেমিক কমিটি হয়ে, স্কুলের নির্বাহী কমিটিতে যাবে। পরে সেটি বোর্ড অব এডভ্যান্সড স্টাডিজের সুপারিশক্রমে তা একাডেমিক কাউন্সিলে অনুমোদিত হওয়ার পর মাঠ পর্যায়ে গবেষণা কার্যক্রম শুরু করবে শিক্ষার্থীরা।বিভিন্ন ফসলের রোগ বালাই, উৎপাদন প্রতিন্ধকতা দূরীকরণসহ কৃষির বিভিন্ন নতুন নতুন দিকে এই ৩১টি গবেষণা প্রস্তাবনা করা হয়েছে। এই গবেষণা কর্মে ছাত্রের চেয়ে ছাত্রীরাই বেশি অংশ নিচ্ছে।

Related posts