শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২৩ ❙ ১৩ মাঘ ১৪২৯

করোনার ভয়াল থাবা : বিশ্বে মৃত্যু ৩ লাখ অতিক্রম

এসবিনিউজ ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণের তালিকায় ঝড়ের গতিতে ওপরের দিকে এগোচ্ছে রাশিয়া। ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে সংক্রমণ প্রায় ১০ হাজার বেড়েছে। মোট আক্রান্তের সংখ্যা আড়াই লাখ ছাড়িয়েছে। এদিকে কোয়ারান্টাইন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, আজ শুক্রবার ভোর সাড়ে ৫টা পর্যন্ত সারাবিশ্বে ৩ লাখ ১ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণ গেছে এবং আক্রান্ত হয়েছে ৪৪ লাখ ৯০ হাজারের বেশি মানুষ।
করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বের একটা বড় জনসংখ্যা বাড়িতে বা অনেকটা অনিচ্ছায় বন্দি জীবন কাটাচ্ছে। এতে করে মানসিক চাপ বাড়ছে। এ বিষয়ে জাতিসংঘ বলছে, মানসিক স্বাস্থ্য এমন একটা খাত যেখানে বিনিয়োগ কম কিন্তু এটা একটা জায়গা যেটার খেয়াল রাখা প্রয়োজন। মহামারী মোকাবিলার যেসব পরিকল্পনা তার মধ্যে মানসিক স্বাস্থ্যও যোগ করার কথা পৃথকভাবে বলছে জাতিসংঘ।
ভারতে এক দিনে ২৪ ঘণ্টায় ৩ হাজার ৭২২ জন আক্রান্ত হয়েছে। দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৭৮ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। করোনার হানায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ১৩৪ জনের। ফলে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল ২ হাজার ৫৪৯ জনে। জাপানের ৪৭টির মধ্যে ৩৯টি এলাকাতেই তুলে নেওয়া হবে জরুরি অবস্থা। তবে টোকিও, হোক্কাইডো এবং ওসাকায় থাকবে কড়াকড়ি। ৬ মে পর্যন্ত জাপানে প্রাথমিকভাবে জরুরি অবস্থা জারি ছিল এর পর সেটা ৩১ মে পর্যন্ত বাড়িয়ে নেয়া হয়েছে। স্কুল, ব্যবসা-বাণিজ্য কার্যত বন্ধ আছে। জাপানে ১৬ হাজার করোনা ভাইরাস রোগী পাওয়া গেছে।
অপরদিকে মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ। রাশিয়ায় একটানা ৮ দিন ধরে ১০ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়। ফলে দেশটিতে সংক্রমণের এই বৃদ্ধি ইউরোপের জন্য দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ব্রিটেন, ইতালি, ফ্রান্স ও জার্মানিকে পেছনে ফেলে সংক্রমণের নিরিখে বিশ্বে এই মুহূর্তে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে রাশিয়া।
রাশিয়ার সংক্রমণের হার বাড়া নিয়ে স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলছেন, পরীক্ষা বেশি হওয়ার কারণেই এই চিত্র দেখা যাচ্ছে। প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনও একই কথা বলেছেন। প্রতিদিনই দেশে করোনাভাইরাসের পরীক্ষার হার বাড়ানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন। রাশিয়ায় ইতিমধ্যেই ৬২ লাখ মানুষকে করোনা সংক্রমণের পরীক্ষা করানো হয়েছে বলে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত খবরে জানা গেছে। তবে সংক্রমিতের সংখ্যা উদ্বেগ বাড়ালেও আমেরিকা বা ইউরোপের অন্যান্য দেশের তুলনায় পুতিনের দেশে করোনার কারণে মৃতের সংখ্যা তুলনামূলক ভাবে অনেক কম। সেদেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৩০৫ জনের। আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ৫২ হাজার ২৪৫ জন। ইউরোপের অন্যান্য দেশে আক্রান্ত ও মৃত্যু আগের চেয়েও কমলেও রাশিয়ায় বাড়ায় নতুন করে চিন্তা শুরু হয়েছে। কারণ রাশিয়ায় এই পরিস্থিতি থাকলে ইউরোপ তা থেকে রক্ষা পাবে না বলে মনে করছেন ইইউর স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।
ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ তার আক্রান্ত হওয়ার করুণ অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিয়ে বলেছেন এ সময় তার ডাবল নিউমোনিয়া হয়েছিল। তিনি এবং তার স্ত্রী দু’জনেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। পেসকভ করোনাভাইরাসকে চরম রক্তচোষা বলে বর্ণনা করেন এবং বলেন যে দেহের রোগ প্রতিরোধ শক্তি কমে যাওয়ায় ফুসফুস খুবই দুর্বল হয়ে পড়ে।

Related posts