মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১ | ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

Select your Top Menu from wp menus

এসএমই সহায়তা কর্মসূচী চালু করল হুয়াওয়ে

এসবিনিউজ ডেস্ক: এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলে করোনার বৈশ্বিক মহামারির বিরুদ্ধে লড়ায়ের পাশাপাশি এ অঞ্চলের অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে কারিগরি সহায়তার লক্ষ্যে ইকোসিস্টেম পার্টনারদের নিয়ে একসাথে এসএমই সাপোর্ট প্রোগ্রাম উন্মোচন করেছে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় আইসিটি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে। এই এসএমই সাপোর্ট প্রোগ্রাম চলবে আমাগী ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ পর্যন্ত।
এই উদ্যোগের আওতায় যোগ্যতাসম্পন্ন এসএমই প্রার্থী তিন হাজার মার্কিন ডলার সমমূল্যের কুপন এবং বিনামূল্যে প্রাসঙ্গিক পরামর্শসহ অর্থ, শিক্ষা, ই-কমার্স, গেমিং, আইওটি, অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট ও এন্টারপ্রাইজ অ্যাপ্লিকেশন – এমন না-না খাতে সর্বাধুনিক ও কার্যকরী ক্লাউড সল্যুশন প্রযুক্তি সেবা পাবে।
যেসব এসএমই প্রতিষ্ঠানের হুয়াওয়ে ক্লাউড অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে অ্যাকাউন্ট রয়েছে কিন্তু তারা কখনওই কোনো পেইড সেবা গ্রহণ করেননি, তারা এসএমই সাপোর্ট প্রোগ্রাম পেজ থেকে আবেদন করে ক্লাউড বিশেষজ্ঞদের কাছ থেকে কনসালটেশন সেবা নিতে পারেন। প্রতিষ্ঠানের ক্লাউড সেবার প্রয়োজনীয়তা এবং ক্লাউড ব্যবহারের প্রস্তুতির ওপর ভিত্তি করে আবেদন পত্রগুলো পর্যালোচনা করা হবে।
হুয়াওয়ে ক্লাউডের সহযোগিতার বিষয়ে সিম্বায়োনাট হেলথের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও স্ট্র্যাটেজি অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের ভিপি ইয়ংইয়ান লিউ বলেন, ‘আমরা এখনও অনেক ছোট, কিন্তু বড় ব্যবসায় পরিণত হওয়ার ইচ্ছা আমাদের রয়েছে। এজন্য, বিশ্বস্ত অংশীদার নির্বাচন করা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কারণ এর মাধ্যমেই নির্ভরযোগ্য প্রযুক্তি, সেবা ও সহায়তা পাওয়া যাবে। হুয়াওয়ে খুব ভালো কাজ করেছে। আমি বিশ্বাস করি, আমরা এর অন্যান্য অনেক বড় গ্রাহকদের মতোই তাৎক্ষণিক সেবা পেয়েছি।“
ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগসমূহ (এসএসই) এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলে প্রবৃদ্ধি ও উদ্ভাবনের মূল চালিকাশক্তি। এশিয়া-প্যাসিফিক ইকোনোমিক কোঅপারেশনের (অ্যাপেক) অর্থনীতিতে সকল ব্যবসার ৯৭ শতাংশের বেশি এবং কর্মসংস্থানের অর্ধেকই হয় এসএমই’র মাধ্যমে। তথ্য অনুযায়ী, এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলে অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধির ক্ষেত্রে এসএমই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে, এক্ষেত্রে বেশিরভাগ দেশে তাদের জিডিপি’তে ৪০ থেকে ৬০ শতাংশের বেশি অবদান থাকে।
বৈশ্বিক মহামারির কারণে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে ডিজিটাল রূপান্তর ত্বরাণ্বিত করতে হচ্ছে এবং এর পূর্বনির্ধারিত সময়ের চেয়ে এক থেকে তিন বছর আগেই ক্লাউড ব্যবহার করতে হচ্ছে। হুয়াওয়ে ক্লাউড বর্তমানে ১৯ হাজারের বেশি অংশীদার ও ১৬ লাখের বেশি ডেভেলপারের সাথে কাজ করছে এবং টেকসই অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে ডিজিটাল অর্থনীতি শক্তিশালী করার ব্যাপারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হুয়াওয়ে ক্লাউড।
বর্তমানে, কম্পিউট, স্টোরেজ, নেটওয়ার্ক, সিকিউরিটি, বিগ ডাটা, এআই ও আইওটি’র ক্যাটাগরিতে ২২০টির বেশি সেবা এবং কারখানার জন্য ২১০টির বেশি সল্যুশন প্রদান করছে হুয়াওয়ে ক্লাউড। ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানগুলো অন্যান্য ইকো-পার্টনাদের সাথে মিলে উদ্ভাবন ত্বরাণ্বিত করতে হুয়াওয়ের শক্তিশালী ইকোসিস্টেমের ওপর নির্ভর করতে পারে।

Related posts