রবিবার, ২২ জানুয়ারি ২০২৩ ❙ ৮ মাঘ ১৪২৯

এবার রেড জোনে কঠোর লকডাউন: এলাকায় থাকবে সাধারণ ছুটি

এসবিনিউজ ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যেও জীবন, জীবিকার কথা বিবেচনায় নিয়ে এবার আর দেশব্যাপী সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হবে না। অধিক সংক্রমণ এলাকাকে ‘রেড জোন’ বা বিপদজনক এলাকা ঘোষণা করে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে জোনভিত্তিক ভিন্নমাত্রার লকডাউন ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আর লকডাউন হওয়া এলাকাগুলোতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হবে বলেও জানা গেছে। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে শুক্রবার সরকারের উচ্চপর্যায়ের এক সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই ভার্চুয়াল সভায় অংশ নেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আহমেদ কায়কাউসসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
জানা যায়, করোনাভাইরাসের কারণে সাধারণ ছুটি তথা লকডাউনের মধ্যে সংক্রমণ পরিস্থিতি, চিকিৎসা ব্যবস্থা, কর্মহীন মানুষের খাদ্য সংস্থানসহ এবার সব অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সামনে এগোতে চায় সরকার। এজন্য চলতি বছরের বাজেটেও স্বাস্থ্যসহ প্রতিটি খাতেই করোনা পরিস্থিতি সামাল দেয়ার প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ রাখা হয়েছে। তাই আর গোটা দেশ লকডাউন নয়, অর্থনীতি বাঁচিয়ে অধিক সংক্রমিত ‘রেড জোনগুলোতে’ কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে সরকার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
এর আগে নতুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় গত ১ জুন সরকারের উচ্চপর্যায়ের এক সভায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বিবেচনায় দেশের বিভিন্ন এলাকাকে লাল, হলুদ ও সবুজ এলাকায় ভাগ করে ভিন্নমাত্রায় এলাকাভিত্তিক লকডাউন দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছিল। অধিক সংক্রমিত এলাকাকে বিশেষভাবে নিয়ন্ত্রণে নেয়ার বিষয়ে ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও সম্মতি দিয়েছেন। তারই ধারাবাহিকতায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব রাজাবাজারে গত মঙ্গলবার রাত ১২টার পর থেকে লকডাউন শুরু হয়। কড়াকড়িতে শুক্রবার তৃতীয় দিন পার হল।
দেশের করোনা মহামারীর সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় এলাকাভিত্তিক লকডাউন বাস্তবায়নের অগ্রগতি পর্যালোচনায় শুক্রবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সরকারের উচ্চপর্যায়ের সভাটি এই অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, চাকরিজীবীদের দুশ্চিন্তামুক্ত রাখতেই লকডাউন করা এলাকায় সাধারণ ছুটি দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।
বৈঠকে সূত্রে জানা যায়, সংক্রমণ বেশি থাকা আরও বিভিন্ন এলাকায় শিগগির লকডাউন হবে। তবে ওই সব এলাকার নাম বেশি আগে ঘোষণা দেয়া হবে না। কার্যকর কারার আগ মুহুর্তে লকডাউন করা এলাকার নাম ঘোষণা করা হবে। কারণ বেশি আগে ঘোষণা করলে ওই এলাকার অনেক মানুষ এমনকি আক্রান্ত ব্যক্তিরাও অন্যত্র চলে যেতে পারে, যা ঝুঁকি বাড়বে। আর যেহেতু এখন লকডাউন এলাকায় বাজার-সদাইসহ সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা রাখা হচ্ছে, ফলে আগ মুহুর্তে ঘোষণা করলেও অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। এছাড়া শক্ত ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে একটি এলাকার কেবল বেশি সংক্রমিত অংশকেই লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে ।
বৈঠকে অংশ নিয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, পুরো ওয়ার্ড না করে কোন ওয়ার্ডের যে অংশে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ বিপদজনক বা রেড মাত্রায় পৌঁছেছে, শুধু সেই এলাকায় লকডাউন করলে কাজের চাপ কম হবে। আর সারাদেশে যখন এলাকাভিত্তিক লকডাউন ঘোষণা করা হবে তখন সব জায়গায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ন্যস্ত করা কঠিন হয়ে পড়বে। সে জন্য জনপ্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে এটি কার্যকর করা সহজ হবে। ত্রাণ বিতরণসহ বিভিন্ন সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এবং সদস্যদের নিয়ে উপজেলা পর্যায়ে যে কমিটি গঠন করা হয়েছে, সেই কমিটিগুলোকে সক্রিয় করে লকডাউনের বিধিবিধান বাস্তবায়নের দায়িত্ব দিলে তা অধিক কার্যকর হবে বলে মনে করেন তিনি। এছাড়া এসব এলাকায় গুরুতর অসুস্থ রোগীদের দ্রুত হাসপাতালে নেয়ার জন্য এম্বুলেন্স সেল করে তাৎক্ষণিক সেবা দেয়ার জন্য প্রস্তুত রাখতে হবে।

Related posts