শুক্রবার, ৭ আগস্ট ২০২০ | ২২ শ্রাবণ ১৪২৭

Select your Top Menu from wp menus

আমফানের তাণ্ডবে পশ্চিমবঙ্গের ২ জেলা লন্ডভন্ড : নিহত ১২

এসবিনিউজ ডেস্ক: সুপার সাইক্লোন আমফানের তাণ্ডবে কলকাতাসহ পশ্চিমবঙ্গের সমুদ্র উপকূলীয় অঞ্চলের ২ জেলা উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা লন্ডভন্ড হয়েছে বলে দাবি করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। এই ঝড়ের তাণ্ডবে রাজ্যে অন্তত ১০ থেকে ১২ জনের প্রাণহানি ঘটেছে বলে জানিয়েছেন তিনি। ঘূর্ণিঝড় চলাকালে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমফানে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞের খবর মিলছে। কত যে বাড়ি, নদী বাঁধ ভেঙে গেছে, খেত থেকে সব সর্বনাশ হয়ে গেছে, সেই সংখ্যাটা এখনই বলা যাবে না। ১০ থেকে ১২ জনের মৃত্যুর খবর পেয়েছি। বনগাঁ-হাবড়ায় এখনও তাণ্ডব চলছে। ধ্বংসের পুরো চিত্র বুঝতে ১০-১২ দিন লেগে যাবে। এক দিনে কিছু হবে না।
খবরে প্রকাশ, গত ৫০ বছরে কলকাতার মানুষ এ ধরনের ঝড় দেখেনি। আমফানের তাণ্ডবে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে কলকাতা শহর। ইতিমধ্যে কলকাতাজুড়ে শত শত গাছ ও বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে পড়ায় সড়ক যোগাযোগ কার্যত বন্ধ হয়ে গেছে। বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে গোটা শহর। গাছ ভেঙে পড়েছে অলিতে গলিতে। স্থানীয় আবহাওয়া অফিসের খবর অনুযায়ী, ১৫০ থেকে ১৬০ কিলোমিটার গতিবেগে বুধবার বেলা আড়াইটায় পশ্চিমবঙ্গে প্রথম আঘাত হানে আমফান। পাশাপাশি আঘাত হানে উপকূলীয় সুন্দরবন, হলদিয়া, দিঘাসহ দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার বহু এলাকা।
মমতা বলেন, পাথরপ্রতিমা, নামাখানা, বাসন্তী কুলতলি, বারুইপুর, সোনারপুর, ভাঙড় সব ধ্বংস হয়েছে। আফটার শক তো থাকেই, ফলে এখনই সব মিটছে না। চলবে এটা মাঝরাত পর্যন্ত। কেন্দ্রের কাছে আবেদন থাকবে, পলিটিক্যালি দেখবেন না, মানবিক ভাবে দেখুন। তিনি বলেন, ৫ লক্ষ মানুষকে সরাতে পেরেছি। বিদ্যুৎ নেই, জল নেই, পুকুর, চাষের জমি সব শেষ। দিঘাতে তেমন বেশি হিট করেনি, রাজারহাট, হাসনাবাদ, গোসাবা, সন্দেশখালি, বনগাঁ, বাগদা, হাবড়া- সব সব, চারদিকে সর্বনাশ হয়েছে।
হাওড়ায় ঘরের টিন এসে মাথায় আঘাত করলে হাওড়ায় ১৩ বছরের কিশোরী মারা গেছে। উত্তর ২৪ পরগনার মিনাখাঁয় এক নারী গাছচাপা পড়ে মারা গেছেন। পরগনার বসিরহাটেও এক যুবক গাছে চাপা পড়ে মারা গেছে।

Related posts