শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০ | ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭

Select your Top Menu from wp menus

আত্মনির্ভর পথেই এগোবে ভারত: ইন্ডিয়া গ্লোবাল উইকে মোদীর ঘোষণা

এসবিনিউজ ডেস্ক: সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাস মহামারীর আবহের মধ্যেি শুরু হল এবারের ইন্ডিয়া গ্লোবাল উইক- ২০২০। বৃহস্পতিবার এই গ্লোবাল উইকের সূচনা করলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ৩০টি দেশের ৫ হাজার প্রতিনিধি অংশ নিচ্ছেন এই অনুষ্ঠানে। আর এই সুযোগে বিশ্ব দরবারে আত্মনির্ভর ভারতের ব্লুপ্রিন্ট পেশ করলেন তিন। এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সর্বজনীন নেতা ও শিল্প ক্ষেত্রের প্রথম সারির মানুষজনকে এক জায়গায় নিয়ে আসা হবে।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, গত কয়েকবছরে দরিদ্রদের জন্য একাধিক প্রকল্প তৈরি করাই নয়, তা তাঁদের কাছে পৌঁছে দিয়েছে সরকার। বিনামূল্যে গ্যাস, ব্যাঙ্কে টাকা পৌঁছে দেয়া ইত্যাদি নানা পরিষেবা দেয়া হয়েছে। ভারত মুক্ত অর্থনীতির দেশ। ভারত গত কয়েকবছরে যা করেছে, তা অন্য অনেক দেশ অনুসরণ করছে।
নরেন্দ্র মোদী বলেন, ১৩০ কোটি মানুষ আত্মনির্ভর ভারতের ডাক দিয়েছে। এর অর্থাৎ আমরা গ্লোবাল সাপ্লাই চেইনের সাথে মিলে স্থানীয় ভাবে উৎপাদন বাড়াবো। ভারত আত্মনির্ভর ভারতের পথে এগিয়ে চলেছে। এর অর্থ বহির্বিশ্বের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন নয়, স্বনির্ভর হওয়া।
মোদী বলেন, ভারত নিজেদের পরিকাঠামো উন্নয়ন করেছে। ফলে বিদেশি বিনিয়োগের পথ প্রশস্ত হয়েছে। ভারতের ফার্মা শিল্প গোটা বিশ্বের জন্য অমূল্য রতœ। আমরা আমাদের দরজা খুলে দিয়েছি বিনিয়োগকারীদের জন্য। আসুন আমাদের কৃষকদের সাথে অগ্রগতির এই পথে একসাথে চলুন। খুব কম দেশই এরম সুযোগ দেবে যা ভারত আজকে দিতে সক্ষম।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, চেষ্টা করা হচ্ছে যাতে প্রকৃতিকে ঠিক রেখে, পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রেখে অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথে ভারত এগিয়ে চলেছে। খুব কম দেশই এরম সুযোগ দেবে যা ভারত আজকে দিতে সক্ষম। ভারতের ফার্মা শিল্প গোটা বিশ্বের জন্য অমূল্য রতœ। ভারত নিজেদের পরিকাঠামো উন্নয়ন করেছে। ফলে বিদেশি বিনিয়োগের পথ প্রশস্ত হয়েছে। আমার বিশ্বাস ভারত করোনা ভ্যাকসিন তৈরিতেও বড় ভূমিকা নেবে এবং খুব শীঘ্রই বিশ্বের কাছে আমরা এই ভ্যাকসিন তৈরি করে দিতে পারব।
বিশ্বের কাছে ভারতকে পথ প্রদর্শক হিসাবে তুলে ধরে মোদি বলেন, ভারতীয়রা ঐতিহাসিকভাবে রিফর্মের জন্য কাজ করেছে। অর্থনৈতিক হোক বা সামাজিক হোক, ভারত পথ দেখিয়েছে। এখনও এই পথেই এগাতে হবে। ভারত ট্যালেন্টের পাওয়ারহাউজ। আমরা সব সময় করতে ও শিখতে মুখিয়ে থাকি। বর্তমান সময়ে আমাদের ফের ঘুরে দাঁড়ানো নিয়ে ভাবতে হবে। এবং এই ঘুরে দাঁডা়নোর প্রক্রিয়ায় ভারত অগ্রণী ভূমিকা নেবে।

Related posts