‘নিজেদের পরিণতি চিন্তা করুণ’: মঞ্জু


ফেব্রুয়ারি ১০ ২০১৮

স্টাফ রিপোর্টার: সাজানো পাতানো মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারাবাসের তৃতীয় দিনে শনিবার (১০ফেব্রুয়ারি) খুলনায় বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও খুলনা মহানগর সভাপতি সাবেক এমপি নজরুল ইসলাম মঞ্জু সরকার ও পুলিশকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, গণতান্ত্রিক সংগ্রামের আপোসহীন নেত্রী ও তিন বারের সফল প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় কারাগারে পাঠানোয় দেশের ১৬ কোটি মানুষের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। কিন্ত দেশনেত্রীর নির্দেশে আমরা ধৈর্য্য ধারণ করে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করছি। আমাদের সেই ধৈর্যের বাঁধ ভেঙ্গে গেলে সারা দেশে যে আগুণ জ্বলবে তা নেভানোর সক্ষমতা এই সরকার কিংবা তার অনুগত পুলিশ বাহিনীর নাই।

বিএনপির ভবিষ্যত নিয়ে দুশ্চিন্তাগ্রস্থ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ্য করে নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, বিএনপির কি হবে, বিএনপি কিভাবে চলবে এই ভাবনায় ওনার রাতের ঘুম হারাম হয়ে যাচ্ছে। দুঃশাসনের নয় বছরে বিএনপির লাখ লাখ নেতাকর্মীদের ওপর জুলুম, নির্যাতন, হামলা, মামলা, খুন, গুম, অপহরণের স্টীম রোলার চালানো হয়েছে। এতো অত্যাচার, এতো নির্যাতন সহ্য করার পরেও একজন বিএনপি কর্মী আওয়ামী লীগে যোগ দেয়নি। এ থেকে তাদের বোঝা উচিৎ বিএনপি কিভাবে চলবে।

খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠানোর পর জাতিসংঘসহ সারা বিশ্ব উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জানিয়ে নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, শুধু উদ্বেগ নেই আওয়ামী লীগের। তারা খালেদা জিয়াকে জেলে দিয়ে, বিএনপির শীর্ষ নেতাদের নির্বাচনে অযোগ্য করে আর একটি এক তরফা নির্বাচন করতে চায়। ৫ জানুয়ারী নির্বাচনের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, সেদিন ভোট কেন্দ্রে কুকুর-বিড়াল ছাড়া কোন ভোটার ছিলনা। আগামীতে এ ধরনের চেষ্টার পুনরাবৃত্তি করা হলে এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হবে যা সামাল দিতে আওয়ামী প্রশাসন ব্যর্থ হবে।

খুলনা থানায় পুলিশের দায়ের করার মামলার কঠোর সমালোচনা করেন তিনি বলেন, মামলার এজাহারে আমার নেতৃত্বে বিএনপির নেতাকর্মীরা লাঠিসোটাসহ হামলা, ভাংচুর, সড়ক অবরোধ করে পুলিশকে আহত করেছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। সমবেত জনতার উদ্দেশ্যে তিনি জানতে চান, এটা কি সত্যি? নেতাকর্মীরা সমস্বরে হাত তুলে না না বলে উঠলে নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, আপনারা স্বাক্ষ্য দিলেন। যারা এই মিথ্যা মামলা দিয়েছে তাদেরকে একদিন এ জন্য জবাবদিহি করতে হবে। তিনি বিএনপি অফিস চত্বর থেকে গ্রেফতার সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজা, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, মেহেদী হাসান দীপু, শামসুজ্জামান চঞ্চলসহ নগরীর বিভিন্ন স্থান থেকে আটক সকল নেতাকর্মীর নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন। বিএনপি ভাঙ্গার ষড়যন্ত্র চলছে দাবি করে তিনি এ বিষয়ে সতর্ক থাকার জন্য নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানান।

বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান মুরাদের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মনিরুজ্জামান মনি, কাজী সেকেন্দার আলী ডালিম, মীর কায়সেদ আলী, জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু, মোল্লা আবুল কাশেম, সিরাজুল ইসলাম, ফখরুল আলম, এ্যাড. ফজলে হালিম লিটন, অধ্যাপক আরিফুজ্জামান অপু, শেখ আব্দুর রশিদ, সিরাজুল হক নান্নু, এ্যাড. এস আর ফারুক, শফিকুল আলম তুহিন, মাহবুব হাসান পিয়ারু, আজিজুল হাসান দুলু, মুজিবর রহমান, শরিফুল ইসলাম বাবু প্রমুখ। সমাবেশের শুরুতে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামণা করে বিশেষ দোয়া মোনাজাত করেন ওলামা দল নেতা মাওলানা আব্দুল গফফার।

এদিকে জেলা বিএনপির সমাবেশে বক্তৃতা করেন জেলা বিএনপির সভাপতি এ্যাড. এস এম শফিকুল আলম মনা, আমীর এজাজ খান, খান জুলফিকার আলী জুলু, এ্যাড. আব্দুল আজিজ, মনিরুজ্জামান মন্টু, এস এম মনিরুল হাসান বাপ্পী, এস এ রহমান বাবুল, আব্দুর রকিব মল্লিক, শরিফুল ইসলাম জোয়াদ্দার খোকন, খান আলী মুনসুর, কওসার আলী জমাদ্দার, এ্যাড. মোমরেজুল ইসলাম, কামরুজ্জামান টুকু, মেজবাউল আলম, মোল্লা মোশারফ হোসেন মফিজ, আলী আসগর, শামসুল আলম পিন্টু, এ্যাড. এ কে এম শহিদুল আলম, সাইফুর রহমান মিন্টু, মুর্শিদুর রহমান লিটন, ওয়াহিদুজ্জামান রানা, খায়রুল ইসলাম খান জনি, নুরুল আমিন বাবুল, মোল্লা সাইফুর রহমান, খন্দকার ফারুক হোসেন, মোফাজ্জল হোসেন মফু, ইবাদুল হক রুবায়েদ, তৈয়েবুর রহমান, আতাউর রহমান রনু, আব্দুল  মান্নান মিস্ত্রি, গোলাম মোস্তফা তুহিন, আসলাম পারভেজ, শরীফ মোজাম্মেল হোসেন, আহসানুল হক লড্ডন, সুলতান মাহমুদ, সাইফুল হাসান রবি, অধ্যাপক আইয়ুব আলী, হারুনর রশিদ হিরু, খান ইসমাইল হোসেন, শেখ আব্দুস সালাম, জসিমউদ্দিন লাবু, রফিকুল ইসলাম বাবু, ফরহাদ হোসেন, অধ্যাপক মনিরুল হক বাবুল, সরোয়ার হোসেন, শরিফুল ইসলাম বকুল, আব্দুল মালেক, গাজী আব্দুল হালিম, রাহাত আলী লাচ্চু, কবির হাসান ডাবলু, শেখ আব্দুল মালেক, আবুল কালাম লস্কর, মিকাইল বিশ্বাস, আলতাফ হোসেন, সাহাবুদ্দিন ইজারাদার, আব্দুল মান্নান খান, আবু মুছা, গাজী জাকির হোসেন, বেল্লাল মোল্লা, শাহনাজ ইসলাম, সেতারা ইসলাম, নাসিমা পলি, মনিরা পারভীন, মাশকুর হাসান ফ্রান্স, শেখ আব্দুল হালিম, শফিকুল ইসলাম বাচ্চু, হেমায়েত রশিদ খান, আমিরুল ইসলাম তারেক, দিদারুল ইসলাম, রুহুল মোমেন লিটন, খান আনোয়ার হোসেন, মুন্না সরদার, নিজাম ুইদ্দন টিটু, রয়েল আযম, কবির শেখ, আব্দুল জব্বার, সাইদুর রহমান, নীরু মেম্বার, বেল্লাল হোসেন, রফিকুল মেম্বার, মশিউর রহমান লিটন, মোঃ হানিফ, বাদশা গাজী, এ্যাড. এসকেন্দার আলী, এ্যাড. পারভেজ, ইসরাইল বাবু, হাবিবুর রহমান, আবুল কালাম আজাদ, আবুল হোসেন, আবু জাফর, রাশেদ গাজী, আব্দুর রাজ্জাক, মাহফুজ, বিপ্লব, সাইফুল মোড়ল, হুমায়ুন মোল্লা, শেখ ইউসুফ, রানা, বোরহান প্রমুখ।

 


এক্সক্লুসিভ


সাক্ষাৎকার

Ad Space

আইন-আদালত


শিল্প-সাহিত্য

Ad Space

ভ্রমণ

ফিচার

Ad Space

পরিবেশ

Ad Space

আবহাওয়া

Ad Space

রাশিফল


Ad Space