সোমবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

Select your Top Menu from wp menus

সাংবাদিকদের সাথে তালা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার মতবিনিময়

তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি: সাতক্ষীরার তালায় সাংবাদিকদের সঙ্গে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামূলক ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মতবিনিময় করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ মীর আবু মাউদ।

শনিবার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তার কক্ষে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। মতবিনিময়ের সময় ডেঙ্গু রোগের প্রতিরোধে ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বক্তব্য তুলে ধরেণ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা মীর আবু মাউদ।

সভায় তিনি বলেন,ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণের জন্য উপজেলায় ১৪টি মেডিকেল টিম গঠন ও ২টি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং ১২টি ইউনিয়ন পর্যায়ে টিম গঠন করা হয়েছে। পর্যাপ্ত পরিমানে ডেঙ্গু পরীক্ষার কিটসহ যাবতীয় চিকিৎসা সরঞ্জমাদি ও ঔষধ মজুদ আছে। এছাড়া মাঠ পর্যায়ে স্বাস্থ্য সহকারী কর্তৃক উপজেলায় কলেজ,মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে,প্রাথমিক বিদ্যালয়,মাদ্রাসা,কিন্ডার গার্ডেনে ডেঙ্গু প্রতিরোধের জন্য সচেতনতামূলক কার্যক্রম অব্যাহত আছে। এছাড়া ৩১ জুলাই থেকে তালা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডেঙ্গুরোগের পরীক্ষা নিরীক্ষা করা শুরু হয়েছে। এপর্যন্ত প্রায় ২০ জন রোগীকে পরীক্ষা করা হয়েছে। তার মধ্যে থেকে একজনের ডেঙ্গু শনাক্ত করা হয়েছে। তিনি সকলের সহযোগীতা কামনা করেছেন এবং এ রোগে আতংকিত না হওয়ার পরামর্শ দেন।

মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমও ডাঃ রাজীব সরদার,প্রধান হিসাব সহকারী হাফিজুর রহমান,স্বাস্থ্য পরিদর্শক মীর মহসীন হোসন,তালা প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি গাজী জাহিদুর রহমান,সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম,সহ-সম্পাদক সব্যসাচী মজুমদার বাপ্পী,সাংগঠনিক সম্পাদক সেলিম হায়দার,অর্থ সম্পাদক এমএ ফয়সাল,সদস্য জি এম খলিলুর রহমান লিথু,নুর ইসলাম,সেকেন্দার আবু জাফর বাবু ও রির্পোটার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বিএম জুলফিক্কার রায়হান প্রমুখ।

মতবিনিময় সভায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা মীর আবু মাউদ আরো বলেন, ব্যক্তি সচেতনতার মাধ্যমে ডেঙ্গুর উৎপত্তিস্থল ধ্বংস করে অল্প দিনেই ডেঙ্গু প্রতিরোধ করা সম্ভব। ডেঙ্গুর প্রকোপ অচিরেই বন্ধ করতে প্রত্যেকের বাড়ির আশপাশে জমে থাকা পানি, বিশেষ করে, টব, পলিথিন, ডাবের খোসা ইত্যাদিতে যাতে পানি জমে না থাকে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

তিনি আরো বলেন, ২৪ জুন যোগদানের পর থেকে তালা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিস্কার পরিছন্নতা জোরদার করা, নতুন ওয়ার্ড ও শিশু ওয়ার্ড চালু করা,জনপ্রতিনিধিদের কাছ থেকে সিলিং ফ্যান পাওয়া সাপেক্ষে সঠিকভাবে লাগানো,ও আর টি কর্ণার নতুন করে বসার ব্যবস্থাপনা করা,সিসি ক্যামেরা স্থাপন,নিরাপত্তা ও ব্যবস্থাপনার জন্য সার্বিক যোগাযোগ,চিকিৎসা সেবায় সার্বক্ষনিক যোগাযোগের ব্যবস্থাপনাসহ সার্বিক উন্নয়নমূলক কাজ এগিয়ে যাচ্ছে বলে কর্মকর্তা জানান।

Related posts