মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯ ♦ ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

Select your Top Menu from wp menus

লক্ষ্য ঠিক থাকলে জয় অবশ্যই আসবে: শ্রম প্রতিমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার: খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ২০১৮ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (৮ মার্চ) বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠে প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এমপি। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন।
প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বলেন, “তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর একটি জাতি উপহার দিতে না পারলে মুক্তিযোদ্ধাদের ঋণ শোধ হবে না। ঐক্যবন্ধ থাকতে পারলে আমরা উন্নত সমৃদ্ধশালী দেশ গড়তে সক্ষম হবো”। তিঁনি আরো বলেন, “সুস্থ্য শরীর ও সুস্থ্য মনের মানুষই পারে দেশকে এগিয়ে নিতে, এক্ষেত্রে খেলাধুলা খুবই গুত্বপূর্ণ। লেখাপড়ার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদেরকে দেশ গড়ার কাজে অংশ নিতে হবে। লক্ষ্য ঠিক থাকলে এবং হৃদয়ে বিশ্বাস থাকলে জয় অবশ্যই আসবে”। সভাপতির বক্তৃতায় কুয়েট ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন বলেন, মন এবং শরীর সুস্থ থাকলে লেখাপড়ার প্রতি শিক্ষার্থীদের আগ্রহ বৃদ্ধি পাবে, এক্ষেত্রে খেলধূলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের উপস্থিত ছিলেন পরিচালক (ছাত্র কল্যাণ) প্রফেসর ড. শিবেন্দ্র শেখর শিকদার। বক্তৃতা করেন ছাত্র কল্যাণ কমিটির আহ্বায়ক মোঃ আবুল হাসান শোভন ও সদস্য সচিব সাদমান নাহিয়ান সেজান। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ, বিভিন্ন হলের প্রভোস্ট ও সহকারী প্রভোস্টগণ, কর্মকর্তা, ছাত্র-ছাত্রী, কর্মচারীবৃন্দসহ স্থানীয় রাজনীতিবিদ ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। অতিথিবৃন্দ দীর্ঘ সময় ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের আকর্ষনীয় ক্রীড়াশৈলী উপভোগ করেন এবং বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন। ৩৮ টি ইভেন্টে এই ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতায় ব্যক্তিগত ইভেন্টে ছাত্রদের মধ্যে মোঃ তমিরুল ইসলাম এবং ছাত্রীদের মধ্যে তানজিলা পারভীন এমি চ্যাম্পিয়ন হয়। এছাড়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ও অমর একুশে হল যৌথভাবে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি এবং লালন শাহ হল রানার-আপ ট্রফি লাভ করে।
এর আগে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার বিভিন্ন ইভেন্ট শুরু হয়। ক্রীড়া প্রতিযেগিতার ইভেন্টগুলোর মধ্যে ছিল বিভিন্ন ধরণের দৌড়, উচ্চ লাফ, লাফ ধাপ ঝাপ, দীর্ঘ লাফ, চাকতি নিক্ষেপ, গোলক নিক্ষেপ, বর্ষা নিক্ষেপ, ঝুড়িতে বল নিক্ষেপ, রিলে রেস, তিন পায়ে দৌড়, ভাগ্য দৌড়, ধীরে সাইকেল চালনা, ভারসাম্য দৌড়, অন্ধের হাড়ি ভাঙ্গা, যেমন খুশি তেমন সাজো, বালিশ বিতরণ, দড়ি টানা-টানি ইত্যাদি।

Related posts