রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯ ♦ ১০ চৈত্র ১৪২৫

Select your Top Menu from wp menus

বিসিকের কর্মকান্ডকে দৃশ্যমান করতে হবে: চেয়ারম্যান

স্টাফ রিপোর্টার: মোশতাক হাসান বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া বিসিককে রুগ্ন প্রতিষ্ঠান হিসেবে দেখতে চান না, তিনি বিসিককে একটি সফল প্রতিষ্ঠান হিসেবে দেখতে চান। সোমবার (১১মার্চ) খুলনার বিসিক ভবনে আয়োজিত খুলনা ও বরিশাল বিভাগের কর্মকর্তাদের অর্ধবার্ষিকী সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।
এই সম্মেলনে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জুলাই থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত সম্মাদিত সার্বিক কাজের অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা করা হয়।
প্রধান অতিথি বলেন, এদেশের অনেক খ্যাতনামা শিল্প প্রতিষ্ঠানের জন্ম বিসিকের হাত ধরেই হয়েছে। বিসিকের উপর অর্পিত দায়িত্ব যদি আমরা সঠিকভাবে পালন করতে পারি তাহলে বিসিকের মাধ্যমেই শিল্প উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে এদেশ থেকে দারিদ্র্য বিমোচন হবে।
বিসিকের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনার আহবান জানিয়ে বিসিক চেয়ারম্যান বলেন, জাতীয় উন্নয়নে বিসিকের কর্মকান্ডকে দৃশ্যমান করতে হবে। এজন্য ছোট আকারের শিল্প নগরীর পরিবর্তে বড় পরিসরের শিল্প নগরী গতে তুলতে হবে যাতে করে বিভিন্ন শিল্প উদ্যোক্তারা সেখানে বিনিয়োগে আগ্রহী হন।
পদ্মাসেতু নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হওয়ার পর দু’পাশে বৃহদাকার বিসিক শিল্প নগরী গড়ে তোলা হবে উল্লেখ করে মোশতাক হাসান বলেন, আগামী দশ বছরে বিসিকের শিল্পাঞ্চলের এলাকা দুই হাজার একর থেকে বাড়িয়ে বিশ হাজার একরে উন্নীত করা হবে। এজন্য তিনি দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর জিরো টলারেন্স ঘোষণাকে মাথায় রেখে কাজ করা এবং দক্ষতার সাথে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে বিসিককে ঢেলে সাজাতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।
বিসিক আঞ্চলিক কার্যালয় খুলনা আয়োজিত এই সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিসিকের পরিচালক (বিপণন) জীবন কুমার চৌধুরী, পরিচালক (উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ) মোঃ হাবিবুর রহমান, পরিচালক (প্রযুক্তি) মোঃ মাহবুবুর রহমান এবং মহাব্যবস্থাপক (এমআইএস) মোঃ মাজহারুল ইসলাম। সভাপতিত্ব করেন বিসিক খুলনার আঞ্চলিক পরিচালক বাবুল চন্দ্র নাথ।
সম্মেলনে বিসিকের খুলনা ও বরিশাল বিভাগের উপমহাব্যবস্থাপক, উপব্যবস্থাপক, শিল্প নগরী কর্মকর্তাগণ অংশগ্রহণ করেন।

Related posts