বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

Select your Top Menu from wp menus

নেতিবাচক আন্দোলনের কাদায় আটকে গেছে বিএনপির রাজনীতি: কাদের

এসবিনিউজ ডেস্ক: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি বলেছেন, নেতিবাচক আন্দোলনের কাদায় আটকে গেছে বিএনপির রাজনীতি।

শনিবার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সামনে ১৭ আগস্ট ‘বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের মদদে দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে’ সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী সমাবেশে তিনি আরো বলেন, ‘শিল্পী জয়নুলের আকাঁ সেই বিখ্যাত কাঁদায় আটকে পড়া গরুর গাড়ির মতো বিএনপি আটকে আছে রাজনীতির কাঁদায়। এই কাঁদা থেকে বের হতে হলে তাদের রাজনীতির সাংস্কৃতিক পাল্টাতে হবে। এ জন্য নেতিবাচক হত্যা-খুন, সন্ত্রাসের রাজনীতি, জঙ্গিবাদের পৃষ্ঠপোষকতা ও লুটপাট- দুর্নীতির রাজনীতি থেকে বেড়িয়ে আসতে হবে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বাংলাদেশে আপনারাই (বিএনপি) নেতিবাচক-ধ্বংসাত্মক, হত্যা-খুন, সন্ত্রাসের রাজনীতি, জঙ্গিবাদের পৃষ্ঠপোষকতার রাজনীতি, লুটপাট ও দুর্নীতির রাজনীতি শুরু করেছিলেন। ৫ বার বাংলাদেশকে দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ান করে দুর্নীতির কথা বলতে আপনাদের লজ্জা করে না? লজ্জা শরমের মাথা খেয়ে ফেলছেন আপনারা।’

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘আজকের মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব যখন বলেন বেগম জিয়ার মুক্তির আন্দোলন করতে পারেনি এটা তাদের দুর্ভাগ্য। তারা তো দেউলিয়া হয়ে গেছে। দেউলিয়া হয়ে গেছে তাদের নেতৃত্ব। দুর্ভাগ্যের জন্য খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন হয়নি এ ধরনের কথা, এ ধরনের বুলি, ফাঁকা কথা। এ ধরনের অবাস্তব বক্তব্য তারাই দিতে পারে যাদের রাজনীতি-আন্দোলন ভুলের চোরাবালিতে আটকে আছে।’ আওয়ামী লীগের তাদের (বিএনপি) শূন্য করে দিয়েছে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন মন্তব্যের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আপনি নির্বাচিত হয়েও নিজের আসন শূন্য করে দিয়েছেন। আপনি তো শূন্য হবেনই। যিনি নিজের আসন শূন্য করে দেয় তিনি কত বড় শূন্য। তিনি ফাঁকা বেলুনে অবস্থান করছেন।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, এখনো বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ আছে। রক্তের গন্ধ আমার পেয়েছি বারবার। আমরা জানি তাদের প্রাইম টার্গেট এখনো বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। যিনি দেশে-বিদেশে সমাদৃত প্রশংসিত জনপ্রিয় ও জননন্দিত নেতা হিসেবে সুপতিষ্ঠিত। শেখ হাসিনা প্রসংশা শুনলে আপনাদের (বিএনপি) গাত্রদাহ শুরু হয়ে যায়। বাংলাদেশের জনগণের পছন্দ হলেও বিএনপির সেটা পছন্দ নয়।’

ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ আওয়ামী লীগ এই সমাবেশের আয়োজন করে। দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী আবুল হাসনাতের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক একে এম এনামুল হক শামীম, মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, সাবেক খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম প্রমুখ।

Related posts