শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯ ♦ ৭ বৈশাখ ১৪২৬

Select your Top Menu from wp menus

উপজেলা নির্বাচনে বিএনপিকে অংশ গ্রহণের আহবান ওবায়দুল কাদেরের

এসবিনিউজ ডেস্ক: আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপিকে অংশ গ্রহণের আহবান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
তিনি বলেন, ‘উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ গ্রহণের প্রস্তুতি নিতে বিবেচনার জন্য বিএনপিকে আহবান জানাবো। আপনারা নির্বাচনে আসুন, নির্বাচন সুষ্ঠ হবে। আমরা সরকারে থেকে সহযোগিতা করবো। বিএনপি নির্বাচনে এলে তা প্রতিদ্বন্দ্বিতা পূর্ণ হবে।’
ওবায়দুল কাদের সোমবার (২৮জানুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন। সমসাময়িক রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথ গ্রহণ করে সংসদে যোগদানের আহবান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তারা (বিএনপি) সংখ্যায় কত তা দেখবো না। ন্যায়সঙ্গত কোন যুক্তি তারা উপস্থাপন করলে তা সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করা হবে। তাই, আপনাদের উচিত সংসদ সদস্য হিসাবে শপথ গ্রহণ করা।
তিনি বলেন, সংসদে আসার অবস্থান থেকে বিএনপি নিজেই সরে গেছে। কেউ তাদের সরিয়ে দিচ্ছে না। আমরা কী তাদের জোর করে আনবো। গত পাঁচ বছর বিএনপি ছিল না, তো সংসদ কী চলেনি? তবে আমি বলব তাদের সংসদ সদস্য হিসাবে শপথ গ্রহণ করা গণতান্ত্রিক অধিকার। কারণ, জনগণ তাদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন।
একাদশ সংসদ নির্বাচন পুরো বিশ্বে গ্রহনযোগ্যতা পেয়েছে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, এবারের নির্বাচন পুরো বিশ্বে গ্রহনযোগ্যতা পেয়েছে। সর্বশেষ আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও চিঠি দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়ে সরকারের ধারাবাহিকতা কামনা করেছেন। তবে বিএনপি চেয়েছিল নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে, তারা তা করতে পারেনি।
তিনি বলেন, নির্বাচনের পর চীন ও জাপান প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছে। ভারতসহ সার্কভুক্ত দেশগুলোও শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছে। এ অবস্থায় বিএনপি বিভিন্ন দেশে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চিঠি দেয়। তবে তারা সাড়া পায়নি। বরং তারা যাদের চিঠি দিয়েছে, সেই সব দেশ প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছে।
‘নির্বাচনকে বৈধতা দেওয়ার প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে প্রধানমন্ত্রী চা চক্রের আয়োজন করেছেন’ বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী আগামী ২ ফেব্রুয়ারি সবাইকে চা চক্রের দাওয়াত দিয়েছেন। নির্বাচনে যারা অংশ নিয়েছেন তাদের সবাইকে এতে নিমন্ত্রণ করা হয়েছে। এটাকে গার্ডেন পার্টিও বলা যায়। তবে তা সংলাপ নয়। তাতে তারা কেন আসবে না, তা আমরা বুঝি না।
তিনি বলেন, ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী দু’বার সংলাপে বসেছেন। তাদের গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে বলেইতো বৈঠক হয়েছে। গার্ডেন পার্টিতে এলেও তাদের গুরুত্ব দেওয়া হবে। তাবে তাদের প্রতিক্রিয়া সুখকর নয়। এটি তাদের নেতিবাচক রাজনীতির ধারবাহিকতা।
গণফোরামের দু’জনের শপথের বিষয়ে কাদের বলেন, এটি ভালো বিষয়। বিরোধী দল যত শক্তিশালী হবে গণতন্ত্রও তত শক্তিশালী হবে।

Related posts