বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯ | ১ কার্তিক ১৪২৬

Select your Top Menu from wp menus

অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ আর নেই, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক

এসবিনিউজ ডেস্ক: না ফেরার দেশে চলে গেলেন ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) সভাপতি ও মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রবাসী সরকারের উপদেষ্টা অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ।

বাংলাদেশের রাজনীতির অন্যতম নক্ষত্র এবং ৯৭ বছর বয়সী মোজাফফর আহমদ শুক্রবার রাতে রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহে——–রাজেউন)।

ন্যাপের ভারপাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন রাতে সমকালকে জানান, অ্যাপোলো হাসপাতালের আইসিইউতে রাত ৭টা ৪৯ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ। মৃত্যুর সময় তার স্ত্রী ন্যাপের কার্যকরী সভাপতি ও সাবেক এমপি আমিনা আহমদ এবং একমাত্র মেয়ে তার পাশে ছিলেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মোজাফফর আহমদের দাফন বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। রাতে পরিবারের সঙ্গে আলোচনার পর এ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানান ইসমাইল হোসেন।

শারীরিক অবস্থার গুরুতর অবনতি ঘটায় গত ১৪ আগস্ট অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। ওই সময় থেকেই হাসপাতালের আইসিইউতে রাখা হয়েছিল এই জননেতাকে। তার শারীরিক অবস্থা সঙ্কটাপন্ন ছিল বলে জানিয়েছিলেন চিকিসকরা।

কয়েক বছর ধরে অসুস্থ অবস্থায় রাজধানীর বারিধারায় মেয়ের বাসায় দিন কাটাচ্ছিলেন অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ। অসুস্থতার কারণে সেখানেই চিকিসা চলছিল তার। তবে গুরুতর অসুস্থ হলে মাঝেমাঝেই অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি করা হতো। এই দফায় হাসপাতালে ভর্তির পর সেখানেই জীবনাবসান ঘটে তার।

শুক্রবারও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা অসুস্থ অধ্যাপক মোজাফফর আহমদকে দেখতে হাসপাতালে গিয়েছিলেন। বিকেলে তাকে দেখতে যান বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও উপদেষ্টা মনজুরুল আহসান খান।

ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) সভাপতি ও মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রবাসী সরকারের উপদেষ্টা অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শুক্রবার রাতে তারা পৃথক শোকবার্তা দেন। খবর বাসস ও ইউএনবির

শোকবার্তায় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার শোকবার্তায় অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেন।

দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে দেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলনে অধ্যাপক মোজাফফর আহমেদের ভূমিকার কথা গভীর কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, দেশের প্রগতিশীল রাজনীতিতে তার অবদান জাতি চিরদিন শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে।

প্রধানমন্ত্রী মরহুমের পরিবারের শোকাহত সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান ও বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।

Related posts